মঙ্গলবার ২১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৬ ডিসেম্বর, ২০২২ মঙ্গলবার

আমি নির্বাচন করতে নয়, স্বৈরাচারের পতনের জন্য এসেছিলাম: নিক্সন চৌধুরী

অনলাইন ডেস্ক: ফরিদপুর ৩ আসনে নির্বাচন করতে যাননি বলে জানিয়েছেন ফরিদপুর ৪ আসনের সংসদ সদস্য ও যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মুজিবুর রহমান নিক্সন চৌধুরী। তিনি বলেন,‘আমার আসন ফরিদপুর-৪, সেখান থেকে এখানে আসার কোনো প্রশ্নই আসে না। আমি এখানে এসেছিলাম, এক দানবের উত্থান হয়েছিল, তার পতনের জন্য।’

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় ফরিদপুর শহরের অম্বিকা ময়দানে জেলা যুবলীগ আয়োজিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন পালন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে নিক্সন চৌধুরী এসব কথা বলেন।

নিক্সন চৌধুরী বলেন, ‘জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে শুরু হওয়া শুদ্ধি অভিযানের সফলতার জন্য ফরিদপুর এসেছিলাম। দানবের পতন হয়েছে, ফরিদপুরের জনগণ মুক্ত হয়েছে। এখন আসবো, যখন আপনারা দাওয়াত দেবেন, তখন। তবে হ্যাঁ, জননেত্রী শেখ হাসিনা ফরিদপুর সদরে যাকে মনোনয়ন দিয়ে পাঠাবেন, তাকে নির্বাচিত করতে আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো।’ তিনি আরও বলেন, ‘অনেকেই ভাবেন আমি ফরিদপুর-৪ ছেড়ে ফরিদপুর-৩ আসনে আসবো কি না, তাদের অভয় দিয়ে আবারও বলছি, আমি এখানে নির্বাচন করতে আসিনি।’

No description available.

এমপি নিক্সন চৌধুরী এসময় আরও বলেন, শুধু ফরিদপুর নয়, শেখ ফজলে শাম পরশের নেতৃত্বে সারা বাংলাদেশে মানবিক যুবলীগ গঠিত হবে। যুবলীগ হবে জামায়াত শিবিরের প্রেতাত্মা মুক্ত। যার উদাহরণ ইতিমধ্যে ফরিদপুর যুবলীগের কমিটি গঠনের মধ্য দিয়ে আপনারা পেয়েছেন। পুরো কমিটিতে একজনও জামায়াত শিবির বিএনপি পাবেন না। অথচ বিগত দিনে ফরিদপুরের যুবলীগ হয়েছিল জামায়াত বিএনপি করা পরিবারের সদস্যদের দিয়ে।

No description available.

নিক্সন বলেন, ফরিদপুর দানব মুক্ত হয়েছে, আপনারা সবাই একসাথে থাকেন, একসাথে রাজনীতি করেন, তাহলে ভবিষ্যতে আর কোনোদিন কোনো দানবের উত্থান হবে না। আর আপনাদের গ্রুপিং এর কারণে যেন দানব বাহিনী মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে না পারে। আপনাদের ফরিদপুরের দীর্ঘ ১২ বছর এক স্বৈরাচারের শাসনে ছিল, ওই স্বৈরাচার শুধু আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের না, সাধারণ মানুষকেও নির্যাতিত করেছে, জমি দখল করেছে। জন নেত্রী শেখ হাসিনা সেই স্বৈরাচার, সেই রাজাকারের পতন করেছে, জনগণকে মুক্ত করেছে, এটা একমাত্র বঙ্গবন্ধু কন্যা দ্বারাই সম্ভব হয়েছে।

জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক জিয়াউল হাসান মিঠুর সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য রাখেন- ফরিদপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুল হক ভোল মাস্টার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও একেএইচ গ্রুপের পরিচালক শামীম হক, সহ সভাপতি ও হামিম গ্রুপের চেয়ারম্যান একে আজাদ, পৌর মেয়র অমিতাভ বোস, সংসদ উপনেতা সাজেদা চৌধুরীর ছেলে ও রাজনৈতিক প্রতিনিধি শাহাদাব আকবর লাবু চৌধুরী, যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম মেম্বার ফারুক হোসেন, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফাহিম আহমেদ প্রমুখ।

এর আগে নিক্সন চৌধুরী নিজ বাড়ি ভাঙ্গা থেকে সড়ক পথে ফরিদপুর এসে পৌঁছালে সহস্রাধিক মোটরসাইকেল ও কয়েকশ গাড়ির বহর নিয়ে তাকে স্বাগত জানায় যুবলীগ। তাকে অভ্যর্থনা জানিয়ে নেতাকর্মীরা এমপি নিক্সনকে অনুষ্ঠানস্থল অম্বিকা ময়দানে নিয়ে আসেন। সেখানে প্রথমে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কেক কাটেন।

বিষেরবাঁশী.কম/ডেস্ক/ব্রিজ

Categories: রাজনীতি

Leave A Reply

Your email address will not be published.