বৃহস্পতিবার ৩০ বৈশাখ, ১৪২৮ ১৩ মে, ২০২১ বৃহস্পতিবার

৯ বছরের শিশুর কাঁধে বাবা-মা ও দুই বোনের লাশ

অনলাইন ডেস্ক :–দাদির লাশ দাফন করে মা-বাবার সাথে বাসায় ফেরার কথা ছিল মীম আক্তারের (৯)। কিন্তু তা আর হলো না। বাবা-মা ও দুই বোনকে হারিয়ে এখন কাঁদছে সে। অথচ তাকে সান্তনা দেয়ার মতো কেউ নেই। বাবা-মা ও দুই বোনের লাশ নিয়ে বাড়ি ফিরতে হবে তাকে। চিরতরে একা হয়ে গেল মীম।

মাদারীপুর জেলার শিবচরের কাঁঠালবাড়ি ঘাট সংলগ্ন এলাকায় স্পিডবোট ও বালুবোঝাই বাল্কহেডের সংঘর্ষের ঘটনায় পরিবারের সবাই নিহত হলেও ভাগ্যক্রমে বেঁচে যায় মীম। এ ঘটনায় মীমের বাবা মনির হোসেন (৩৮), মা হেনা বেগম (৩২), বোন সুমি আক্তার (৬) ও রুমি আক্তার (৪) নিহত হয়েছেন।​ মীম তার পরিবারের সাথে ঢাকার মগবাজার এলাকায় থাকত। তার দাদার বাড়ি খুলনায়।

রোববার (২ মে) রাতে মীমের দাদি মারা যান। দাদির লাশ দাফন করতে মীম তার বাবা-মা ও দুই বোনের সাথে খুলনার তেরখাদা উপজেলার পারখালি গ্রামে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে এই দুর্ঘটনায় পতিত হয় তারা। এখন দাদির সাথে পরিবারের সদস্যদের লাশও দাফন করতে হবে মীমকে।

অন্যদিকে একই দুর্ঘটনায় স্বামী আরজু মিয়া ও দেড় বছরের ছেলে ইয়ামিনকে হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পরেন আদুরি বেগম। ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলার মাইগ্রো গ্রামের বাসিন্দা আদুরি। স্বামী-সন্তান নিয়ে রাজধানী ঢাকার হাসনাবাদে থাকতেন। এই দুর্ঘটনায় ভাগ্যক্রমে বেঁচে ফেরেন তিনি।

স্থানীয় সূত্র মারফত জানা যায়, রোববার (২ মে) রাতে আদুরি বেগমের মা মনোয়ারা বেগম মারা যান। মায়ের লাশ দেখতে স্বামী-সন্তান নিয়ে গ্রামের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করেন তারা। আনুমানিক সকাল ৬টায় স্পিডবোটটি ৩২জন যাত্রী নিয়ে শিমুলিয়া ঘাট থেকে শিবচরের বাংলাবাজারের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। সাড়ে ৬টার দিকে বাংলাবাজার ঘাটে নোঙর করা একটি বালুবোঝাই বাল্কহেডে ধাক্কা খায় স্পিডবোট। এ সময় ঘটনাস্থলেই ২৬জন যাত্রী প্রাণ হারান। স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় ৫ যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে আরো একজনের মৃত্যু হয়। পরে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা লাশ উদ্ধার করে কাঁঠালবাড়ির ইয়াছিন মাদবরকান্দি গ্রামের দোতরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাখেন।

এ ঘটনায় পুলিশ স্পিডবোটে চালক শাহ আলমকে আটক করেছে। দুর্ঘটনার পর শাহ আলমসহ পাঁচজনকে জীবিত উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এখন তাকে পুলিশের নজরদারিতে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

চালককে আটক করার বিষয়টি নিশ্চিত করে শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিরাজ হোসেন বলেন, স্পিডবোটের চালক শাহ আলমকে আটক করে পুলিশের নজরদারিতে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এছাড়া এখন পর্যন্ত ১২ জনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

বিষেরবাঁশী .কম / ডেস্ক /রূপা

Categories: সারাদেশ

Leave A Reply

Your email address will not be published.