রবিবার ৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ ১৮ নভেম্বর, ২০১৮ রবিবার

ক্যানসার নির্মূলের উপায় উদ্ভাবন

বিষেরবাঁশী ডেস্ক: মাত্র একবার রক্ত পরীক্ষা করে মানুষের শরীরে বিভিন্ন ধরনের ক্যানসার শনাক্ত করে চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব হবে। ডাক্তারদের জন্য এমন আরেকটি যুগান্তকারী উদ্ভাবন করেছে জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি দল। তারা এই পদ্ধতি ব্যবহার করে ক্যানসারের ৮টি সাধারণ ধরন খুঁজে পেয়েছেন।

প্রাথমিক পর্যায়ে ক্যানসার চিহ্নিত করে জীবন বাঁচানোর লক্ষ্যে তারা এ ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করেন। তাদের এই আবিষ্কারকে যুক্তরাজ্যের বিশেষজ্ঞরা খুবই চমকপ্রদ বলে মনে করছেন। খবর বিবিসির।

এদিকে, জার্নাল সায়েন্সে প্রকাশিত এ ক্যানসার সিক টেস্টকে ‘অভূতপূর্ব’ বলা হচ্ছে। কারণ এটি ক্যানসারের কারণে পরিবর্তিত ডিএনএ এবং প্রোটিন দুটিরই সন্ধান করছে। ক্যানসার সিক টেস্টের জন্য রোগীদের ৫০০ ডলারের মতো খরচ হবে।

চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা এমন একটি রক্তপরীক্ষা পদ্ধতি নিয়ে কাজ করছেন যাতে রক্তপ্রবাহে থাকা টিউমারের পরিবর্তিত ডিএনএ ও প্রোটিনের ক্ষুদ্র চিহ্ন শণাক্ত করা যায়। ক্যানসারের মধ্যে বেড়ে ওঠা ১৬টি জিনের মধ্যকার পরিবর্তন এবং রোগীর রক্তে নির্গত হওয়া আটটি প্রোটিন নিয়ে গবেষণা করে এই পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছেন। ডিম্বাশয়, পাকস্থলী, অগ্ন্যাশয়, খাদ্যনালী, মলাশয়, ফুসফুস বা স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত এমন ১,০০৫ জন রোগীর ওপর পরীক্ষামূলকভাবে তারা পদ্ধতিটি প্রয়োগ করেন। এই পরীক্ষায় ৭০ শতাংশ ক্যানসারই শনাক্ত করা গেছে।

জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অফ মেডিসিন-এর ডাক্তার ক্রিশ্চিয়ান টমাসেট্টি বিবিসিকে জানিয়েছেন আগেভাগে ক্যানসার নির্ণয় করাটা খুবই জরুরি। এতে চিকিৎসায় খুব ভালো ফলাফল পাওয়া যায়। তার মতে, এই উদ্ভাবনটি ক্যানসারে আক্রান্তদের মৃত্যুর হার কমিয়ে আনবে।’

যত দ্রুত ক্যানসার চিহ্নিত করা যায়, তত দ্রুত এটার চিকিৎসা করে সফল হওয়া যায়। এমনও হয় যে প্রতি পাঁচজনের মধ্যে চারজন অগ্ন্যাশয়ের ক্যানসারে আক্রান্ত রোগী ক্যানসার নির্ণয় করার কিছু দিনের মধ্যেই মারা যায়। তিনি বলেন, পদ্ধতিটি কার্যকর বলে নিশ্চিত হলে বছরে মাত্র একবার রক্ত পরীক্ষাতেই যে কেউ তার দেহে ক্যানসারের অস্তিত্ব আছে কি না তা জানতে পারবেন।

বিষেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/হৃদয়

Categories: লাইফস্টাইল,স্বাস্থ্য

Leave A Reply

Your email address will not be published.