বুধবার ৪ আশ্বিন, ১৪২৫ ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বুধবার

২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশে শতভাগ ইন্টারনেট নয়াদিল্লিতে

বিষেরবাঁশী ডেস্ক: অনুষ্ঠিত গ্লোবাল সাইবার স্পেস কনফারেন্সে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের ঘোষণা

২০২১ সালের মধ্যে সারা দেশকে শতভাগ ইন্টরনেট সংযোগ ও ৫০ শতাংশ ব্রডব্যান্ড সংযোগের আওতায় নিয়ে আসতে বর্তমান সরকার কাজ করছে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। শুক্রবার ভারতের নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিত গ্লোবাল সাইবার স্পেস কনফারেন্স-২০১৭ এর ‘ব্রিজিং দ্য ডিজিটাল ডিভিাইড-এমপাওয়ারিং বাই টেকনোলজি লেড ইনক্লুসিভনেস’ শীর্ষক প্লেনারি সেশনের আলোচনায় তিনি এ তথ্য জানান।

এ সময় প্রতিমন্ত্রী আরও জানান, ডিজিটাল বাংলাদেশ ঘোষণার পর থেকে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ও তার আইসিটিবিষয়ক উপদেষ্টার নির্দেশনায় বাংলাগভনেট, ইনফো সরকার-২ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে এবং ইনফো সরকার-৩ প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। এছাড়াও কানেকটেড বাংলাদেশ শীর্ষক আরও একটি প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বলেও জানান পলক।
দেশের প্রান্তিক অঞ্চলের ইন্টারনেট সেবার কথা উল্লেখ করে পলক বলেন, সারা দেশে আমরা ৫ হাজারের অধিক ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে জনসাধারণকে প্রায় ২০০ রকমের ডিজিটাল সেবা প্রদান করছি। এর ফলে জনগণ যেমন সাশ্রয়ী মূল্যে ডিজিটাল সেবা গ্রহণ করতে পারছেন, তেমনি এর মাধ্যমে সরকারি সেবা গ্রহণে মানুষের ভোগান্তিও কমেছে।
আন্তর্জাতিক এ সম্মেলনে ডিজিটাল বাংলাদেশের নানামুখী কর্মকা- উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘প্রযুক্তিবৈষম্য হ্রাস করতে বিদ্যমান চ্যালেঞ্জগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো ডিজিটাল অবকাঠামো ও সেবা প্রদান সহজলভ্য করা, সাশ্রয়ী মূল্যে ইন্টারনেট সেবা এবং ডিজিটাল যন্ত্র ও অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারের পর্যাপ্ততা বৃদ্ধি করা।’

দক্ষতাসম্পন্ন জনগোষ্ঠীর অভাব এবং সর্বোপরি সমন্বিতভাবে সামাজিক ও অর্থনৈতিক সমতা সৃষ্টি করার চ্যালেঞ্জের কথা উল্লেখ করে পলক বলেন, আমরা এসব বিষয়ে মনোযোগ নিবদ্ধ করেছি এবং এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় নানা ধরনের কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে চলেছি। এর মাধ্যমে আমরা ২০২১ সালের মধ্যে হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার এবং গবেষণা ও উন্নয়ন খাত থেকে সুনির্দিষ্টভাবে ৫ বিলিয়ন ডলার আয় করতে সক্ষম হব। ভারতের ইলেকট্রনিক, তথ্যপ্রযুক্তি ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী আলফনস কান্নানথানম, ঘানার যোগাযোগমন্ত্রী অশ্রুলা ওয়োসু-একুফুল এবং আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন সংস্থার মহাপরিচালক হাওলিন ঝাও এ প্লেনারি সেশনে বক্তব্য রাখেন। সম্মেলনে ২০টি দেশের মন্ত্রী ও ১৩৬ দেশের আলোচকরা বিভিন্ন সেশনে অংশ নেন বলে সরকারের আইসিটি বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২৩ নভেম্বর সকালে এ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন।

বিষেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/হৃদয়

Categories: বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

Leave A Reply

Your email address will not be published.