বুধবার ১১ আশ্বিন, ১৪২৫ ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বুধবার

রাজধানীর ১১৭৪ স্থানে কোরবানি

বিষেরবাঁশী ডেস্ক: এবারের পবিত্র ঈদুল আজহায় রাজধানীতে মোট ১ হাজার ১৭৪টি স্থান নির্ধারণ করে দিয়েছে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। এর মধ্যে দক্ষিণে ৬২৫টি এবং উত্তরে ৫৪৯টি স্থান ঠিক করে দেয়া হয়েছে। এসব স্থানে স্থানগুলোয় পশু কোরবানি দেওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা থাকবে। যত্রতত্র কোরবানির পশু জবাইয়ের কারণে পরিবেশ দূষণ এড়াতে এই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে দাবি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের। সরেজমিনে দেখা যায়, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের বারিধারা, কালাচাঁদপুর, নর্দ্দা, শাহজাদপুর, বারিধারা জে ব্লক এলাকায় ৫টি স্থানে প্যান্ডেল তৈরি দেখা গেছে। ওয়ার্ড কাউন্সিলর জাকির হোসেন বলেন, আমার জায়গা ঠিক করে দিয়েছি। কিন্তু লোকজন যেতে চায় না। বাড়ির নিচে করতে চায়। কিন্তু আমি এবার রাস্তায় কোরবানি করতে দেব না। মাইকিং করে দিয়েছি। কেউ কোরবানি করলে নিজের বাসার নিচে করবে। রাস্তায় যেন ময়লা না আসে।
এবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় প্রায় আড়াই লাখের বেশি পশু কোরবানি হতে পারে বলে ধারণা করছেন করপোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমডোর শফিকুল আলম। তিনি বলেন, জবাইয়ের নির্ধারিত স্থানগুলোতে একজন করে ইমাম এবং একজন প্রশিক্ষিত কসাই থাকবেন। সেখানে প্যান্ডেল করে দিব। পানির ব্যবস্থাও থাকবে। এই স্থানগুলোর ব্যবস্থাপনার জন্য প্রতিটি ওয়ার্ডে কাউন্সিলের নেতৃত্বে একটা কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়েছে।
৪৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিল নাসির উদ্দিন ভূঁইয়া জানান, পশু কোরবানির জন্য তার এলাকায় ৪টি স্থান। তবে এসব জায়গায় মানুষ আসতে চায় না জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা গত বছরও করেছি। কিন্তু লোকজন তেমন একটা আসতে চায় না। এবার আমরা ভলান্টিয়ার দিয়ে বাড়ি বাড়ি থেকে ময়লা আবর্জনা আনায় নজর দিচ্ছি।
নির্ধারিত স্থানগুলোর বাইরেও যে পশু কোরবানি হবে, তা স্বীকার করে নেন সিটি করপোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা শফিকুল। এত লোককে এইসব স্থানে জায়গা দেওয়া যেমন সম্ভব নয়, আবার সবাই আসবেও না। যারা না আসবে, তারা যেন বাড়িতে কোরবানি করার পরও বর্জ্যটা আমাদের নির্ধারিত জায়গায় ফেলে।

বিষেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/হৃদয়

Categories: লাইফস্টাইল

Leave A Reply

Your email address will not be published.