বৃহস্পতিবার ১৪ মাঘ, ১৪২৭ ২৮ জানুয়ারি, ২০২১ বৃহস্পতিবার

এই শীতেই নিপাহ ভাইরাস ছড়ানোর আশংকা বিজ্ঞানীদের

অনলাইন ডেস্ক:- বছর পেরিয়ে গেলো, করোনা মহামারী পুরো বিশ্বে আতঙ্ক ছড়িয়ে প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে।করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ আসার সাথে সাথে এদেশে হানা দিতে পারে নিপাহ ভাইরাস।বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিজ্ঞানীরা আশংকা করেছেন যে করোনার মতো মহামারী না হলেও এই ভাইরাস আগের চেয়ে বেশিই সংক্রামক।বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গবেষণায় সেসকল রোগের নাম পাওয়া যায় সেগুলো বিশ্বে মহামারী রূপ নিতে পারে।

খেজুরের কাঁচারস এবং বাদুড়ের আধখাওয়া ফল থেকে এই নিপাহ ভাইরাস ছড়ায়।যার ফলে বিজ্ঞানীরা খেজুরের কাঁচারস এবং বাদুড়ের আধখাওয়া ফল খেতে নিষেধ করেছেন।যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীদের থেকে জানা যায় যে বাংলাদেশ নিপাহ ভাইরাসের ঝুঁকিতে আছে।

জানা যায় যে নিপাহ ভাইরাস আগের চেয়েও বেশি সংক্রামক এবং যেকোনো সময় প্রবল হানা দিতে পারে যেকোনো স্থানে এবং জনবসতিতে।শক্তিশালী এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে মহামারী রূপে।ধারণা করা হয় যে বাংলাদেশ,ভারতসহ এশিয়া অঞ্চলে নিপাহ ভাইরাস ছড়িয়ে যেতে পারে মহামারী হয়ে যার ফলে সতর্কতা অবলম্বন করতে বলেছেন বিজ্ঞানীরা।

বাংলাদেশে ২০০১ সালে প্রথম নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সন্ধান পাওয়া যায় মেহেরপুরে।এখন পর্যন্ত মোট ৩১৯ জন রোগী আক্রান্ত হয়েছেন যার মধ্যে ২২৫ জন মারা গেছেন।

নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর লক্ষণঃ

রোগীর হঠাৎ জ্বর, মাথাব্যথা, খিঁচুনি, প্রলাপ ও কারও কারও শ্বাসকষ্ট বা অন্যান্য স্নায়ুরোগ দেখা দিতে পারে।

নিপাহ ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচতে হলে খেজুরের কাঁচারসকে আগুনে জ্বাল দিয়ে ফুটিয়ে খেতে হবে।যাতে জ্বাল দেওয়ার ফলে ভাইরাসটি মারা যায়।এছাড়াও বাদুড়ের আধখাওয়া ফল যাতে না খাওয়া হয়।তাহলেই নিপাহ ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে।যদি নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সব লক্ষণ কারো মধ্যে প্রকাশ পায় তাহলে অতি দ্রুত আইইডিসিআরের হেল্পলাইনে যোগাযোগ করেন।

বিষেরবাঁশী.কম/ডেস্ক/রূপা

Categories: শীর্ষ সংবাদ,স্বাস্থ্য

Leave A Reply

Your email address will not be published.