মঙ্গলবার ৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ ২৪ নভেম্বর, ২০২০ মঙ্গলবার

গণতন্ত্রের মুক্তিতে বিএনপির কোনও অবদান নেই: তথ‌্য প্রতিমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক : ষড়যন্ত্রের নীল নকশা রচনা করার চেষ্টা করছে বিএনপি,  মন্তব‌্য ক‌রে তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান বলেছেন,গণতন্ত্র মুক্তির জন্য বিএনপির কোনও অবদান নেই। এই দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে যেসব নেতাকর্মী প্রাণ দিয়েছেন, তারা সবাই আওয়ামী লীগের। গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বিএনপির কোনও নেতাকর্মীর আত্মাহুতি দেওয়ার নজির বা ইতিহাস নাই।

সোমবার (৯ নভেম্বর)  জাতীয় প্রেস ক্লাবের মাওলানা মোহাম্মদ আকরাম খাঁ হলে ‘শহীদ নূর হোসেন দিবস’ উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন‌। আলোচনা সভার আয়োজন করে বঙ্গবন্ধু অ্যাকাডেমি।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যের সমালোচনা করে মুরাদ হাসান বলেন, ‘‘বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর একের পর এক অসংলগ্ন এবং উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন। তাদের সঙ্গে নভেম্বর বিপ্লব ও সংহতি দিবসের মানে ৭ নভেম্বর ঘৃণ্য হত্যাকাণ্ড। ফখরুল বলেছেন, ‘বাংলাদেশে রাজনৈতিক সরকার দ্বারা দেশ পরিচালিত হচ্ছে না।’ বিএনপির মহাসচিব কী বলতে চান, যখন তারা ক্ষমতায় থাকেন, তখন গণতন্ত্র কোথায় থাকে?’’

তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপির ১৯৯১ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল ও ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত আমরা দেখেছি তাদের কুকীর্তি। তারা এই বাংলাদেশে পরপর পাঁচ বার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। দেশে জঙ্গিবাদের রাজত্ব কায়েম করেছিল। অপারেশন ক্লিনহার্টের নামে আওয়ামী লীগের ২৬ হাজার নেতাকর্মীকে হত্যা করা হয়েছিল। বাংলাদেশ হত্যা-ক্যুর রাজনীতি করে বিএনপি কী প্রতিষ্ঠা করতে চায়? তারা গণতন্ত্র বলতে কী বুঝাতে চায়। আমরা মনে করি, বাংলাদেশে ৭ নভেম্বর হচ্ছে একটি কালো দিবস। এটি একটি হত্যা দিবস। গণতন্ত্র মুক্তির জন্য বিএনপির কোনও অবদান নেই। এই দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে যেসব নেতাকর্মী আত্মাহুতি দিয়েছেন, তারা সবাই আওয়ামী লীগের। গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বিএনপির কোনও নেতাকর্মীর আত্মাহুতি দেওয়ার নজির বা ইতিহাস নাই।’

ডা. মুরাদ হাসান বলেন, ‘‘নূর হোসেন শুধু একটি নাম নয়, একটি ইতিহাস। এরশাদ সরকারের শাসনামলে গণতন্ত্রের মুক্তির লক্ষ্যে নূর হোসেন তার শরীরে বুকে এবং পিঠে লিখেছিলেন ‘স্বৈরাচার নিপাত যাক, গণতন্ত্র মুক্তি পাক’। গণতন্ত্রের মুক্তির লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে কাজ করেছেন নূর হোসেন। এরকম সাহসী একজন মানুষ আজকে খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। তিনি তার জীবন উৎসর্গ করতে বিন্দুমাত্র উৎকণ্ঠা বোধ করেন নাই।’’

বঙ্গবন্ধু অ্যাকাডেমির  সভাপতি মো. নাজমুল হকের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু  সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির সহ- সভাপতি বলরাম পোদ্দার, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কামাল মাহামুদ চৌধুরী, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রমুখ।

বিষের বাঁশী/ডেস্ক/ব্রিজ

Categories: রাজনীতি

Leave A Reply

Your email address will not be published.