মঙ্গলবার ১৪ আশ্বিন, ১৪২৭ ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ মঙ্গলবার

নিন্দিত ও নন্দিত এসপি হারুন: ‘নব্য এক রবিনহুডের নাম’

নিজস্ব প্রতিবেদন: একজন নিন্দিত ও নন্দিত এসপি হারুন! গুরুতর অভিযোগ মাথায় নিয়ে ২০১৯ এর ৩ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ থেকে রাতারাতি পুলিশ সদর দপ্তরে (টিআর শাখায়) বদলির ঘটনাটি ছিল তাঁর চাকরি জীবনের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

কিন্তু দীর্ঘ তদন্তে সেই অভিযোগ ধুপে না টেকায় এবার ডিএমপি’র তেজগাঁও জোনে উপকমিশনার হিসেবে প্রাইজ পোষ্টিং পেয়ে আবারো আলোচনায়।

এরও আগে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বিরোধীদলের হরতাল চলাকালে বিএনপি নেতা জয়নাল আবেদীন ফারুককে সংসদ ভবন এলাকায় পিটিয়ে রীতিমতো আলোচনার ঝড় তোলেন ডিএমপির তৎকালীন অতিরিক্ত উপকমিশনার হরুন অর রশিদ। শিল্পাঞ্চল গাজীপুরের এসপি থাকাকালীনও দাপটের সাথে দায়িত্ব পালন করেন।

সর্বশেষ ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের একমাস আগে নারায়ণগঞ্জের তৎকালীন এসপি আনিসুর রহমানকে প্রত্যাহার করে নেয় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। হরুন অর রশিদ কে নারায়ণগঞ্জ বদলি করেন।।

নারায়ণগঞ্জে ১১ মাস দায়িত্ব পালন কালে প্রতিনিয়ত মুহূর্তে প্রভাবশালীদের বদলির হুমকির মুখে তিনি ছিলেন আপোষহীন। করিতকর্মা ও চৌকস এই পুলিশ কর্মকর্তাকে চ্যালেঞ্জ কখনোই পিছু ছাড়েনি তার সর্বশেষ নজির নারায়ণগঞ্জে।

শেষমেশ পার্টেক্স গ্রুপের মালিক সাবেক সংসদ সদস্য এমএ হাসেম পুত্রকে আটকের জেরে তথা ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ ছাড়তে বাধ্য হন।

এবার নতুন চ্যালেঞ্জ ডিএমপিতে যোগদানের পরই করোনা টেষ্টের ভুয়া রিপোর্ট কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত জেকেজি হেলথ কেয়ারের প্রভাবশালি মালিক ডা.সাবরিনা ও আরিফকে খাঁচায় ঢুকিয়ে এসপি হরুন আবারো আলোচনার তুঙ্গে আসেন।

উল্লেখ্য,টাকার বিনিময়ে করোনার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা না করিয়ে ভুয়া রিপোর্ট দেওয়ার অভিযোগে জেকেজি হেলথ কেয়ারের চেয়ারম্যান চিকিৎসক সাবরিনা ও আরিফ চৌধুরী সহ ৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ পত্র জমা দিয়েছে পুলিশ।

এসপি হারুন উর রশিদ(বিপিএম) নারায়ণগঞ্জে কী কারণে এতো আলোচিত ও সমালোচিত? নারায়ণগঞ্জ থেকে এসপি হরুন এর নাটকীয় এইসব নিয়ে গণমাধ্যমে প্রতিবেদনটি পুনরায় উপস্থাপন করা হয়।

নারায়ণগঞ্জে সহকর্মীদের দেয়া বিদায়ী অনুষ্ঠানে এসপি হরুন কান্নায় ভেঙে পড়েন। টিভি পর্দায় ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সেই কান্নার দৃশ্য অনেকের মনে ভীষণ দাগ কাটে। এসপি হরুন অর রশিদ এর করুণ বিদায়টি ছিল নারায়ণগঞ্জবাসীর কাছে ছিল খুবই অপ্রত্যাশিত ও অনভিপ্রেত।

শত আলোচনা – বিতর্ক সত্ত্বেও এসপি হারুন নারায়ণগঞ্জের সাধারণ মানুষের হৃদয়ে একজন বীর বা রবিনহুড হিসেবে এখনো আলোচনায়।মুক্তিযুদ্ধে ৮ নং সেক্টরের সাব-সেক্টর কমান্ডার মাহবুব উদ্দিন আহমেদের প্রসঙ্গ টেনে নারায়ণগঞ্জের একজন বিশিষ্ট নাগরিক বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের জন্য ‘মাহবুব উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম উপাধি পান।

বঙ্গবন্ধুর পছন্দে তিনি ঢাকার এসপি’ হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। আরো বহু পরিচয় সত্ত্বেও তিনি ‘
দেশবাসীর কাছে সেই এসপি মাহবুব ই।

মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ডিএমপির উপকমিশনার হারুন উর রশিদও যতোই পদোন্নতি পাক না কেন -সেই
‘এসপি হারুন’ পরিচয়টা ই -( সবার মুখমুখে) বেশি উচ্চারিত হবে বলে তিনি মনে করেন।

বিষেরবাশিঁ.কম/ডেস্ক/মৌ দাস

Categories: জাতীয়,নারায়ণগঞ্জের খবর,সারাদেশ

Leave A Reply

Your email address will not be published.