শুক্রবার ৩০ শ্রাবণ, ১৪২৭ ১৪ আগস্ট, ২০২০ শুক্রবার

সৃজনশীলতার ছোঁয়ায় ‘সবুজ ক্যাম্পাস প্রকল্পের’ আওতায় নারায়ণ কলেজের নান্দনিক রূপ

সুভাষ সাহা: সৃজনশীল ও ডায়নামিক নেতৃত্বগুনে সমস্যাজর্জড়িত প্রায় ১০ হাজার ছাত্রছাত্রীর বেসরকারি নারায়ণগঞ্জ কলেজ এখন একটি ঈর্ষণীয় নাম।পরিচালনা পর্ষদ ও শিক্ষকদের মধ্যে আভ্যন্তরিন কোন্দল, অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের যাঁতাকলে কলেজের প্রশাসনিক ও শিক্ষার পরিবেশ যখন হুমকির মুখে ঠিক তখনি ২০১৬ সালে শক্তহাতে হাল ধরেন নারায়ণগঞ্জ কলেজ পরিচালনা পর্ষদের নবাগত সভাপতি সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান। শুরু হয় উন্নয়নধারার নতুন মেরুকরণ।

২০১৭ সালের জুলাই মাসে কলেজের উপাধ্যক্ষ ফজলুল হক রূমন রেজা দায়িত্ব পান ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে।দুই পরীক্ষিত কর্মবীরের যুগল নেতৃত্বে শুরু হয় নতুন পথচলা। পরিচালনা পর্ষদের নতুন সভাপতির নারায়ণ ৫ আসনের সাংসদ একেএম সেলিম ওসমানের বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রূমন রেজার নিরলস প্রচেষ্টায় ‘নারায়ণগঞ্জ কলেজের’ শিক্ষার পরিবেশ সহ সামগ্রিক উন্নয়নে যোগ হয় নতুন মাত্রা।

তারপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। গত সাড়ে তিন বছরে নারায়ণগঞ্জ কলেজের শিক্ষার গুণগত মান ও অবকাঠামোগত উন্নয়নে স্মরণকালের বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসে। পরীক্ষার ফলাফলের হার জেলার শীর্ষস্থান অলঙ্কৃত করে। এরই মধ্যে বৈশ্বিক করোনার মহামারি লণ্ডভণ্ড করে দেয় সবকিছু।

গত ১৭ মার্চ ২০২০ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘কলেজের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি’ উদ্বোধনকলে গভর্নিং বডির সভাপতি এ কে এম সেলিম ওসমান কলেজে ‘সবুজ ক্যাম্পাস’ গড়ে তোলার নির্দেশনা দেন।কিন্তু করোনার প্রভাবসহ অন্যান্য প্রতিকুল পরিস্থিতিতে সবুজ ক্যাম্পাস প্রকল্পও অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে।

করোনা’র আগ্রাসনের মুখে কর্মব্যস্ত কোলাহলপূর্ণ নারায়ণগঞ্জ নগরীর বৈচিত্র্যময় জীবন যেন থমকে গেছে। স্কুল-কলেজগুলোও জনমানবশুন্য নির্জন দ্বীপের মতো মলিন চেহারায় আবৃত। কলেজ বাড়ান্দা বা গাছতলায় শিক্ষার্থীদের আনাগোনা নেই,নেই বিরতির সময় চিরচেনা আড্ডা ।শিক্ষক শিক্ষার্থীদেরও নিত্য নিয়মিত কর্মের কোন তাগিদ নেই।যেন অপরিচিত – অচেনা এক শিক্ষাঙ্গন! নিরাপদ জীবনের সন্ধানে সবাই স্বেচ্ছা কোয়ারান্টাইনে। তাই বলে জীবন তো থেমে থাকার নয়!কাজপাগল নারায়ণগঞ্জ কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রুমন রেজার অলস সময় কাটেনা।

স্বাভাবিক জীবনের ছন্দ হারিয়ে অনেকটা উদাস রুমন রেজা! নিয়ম করে আগের মতো ঠিকই কলেজে আসাযাওয়া করেন। শিক্ষার্থী বিহীন নিস্প্রাণ শিক্ষাঙ্গনের মলিন চেহারা ভালো লাগে না!নিঃসঙ্গতার অস্বস্তি দূর করার উপায় বের করতে মরিয়া ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রূমন রেজাা। মাথায় আসে সাংসদ সেলিম ওসমানের প্রস্তাবিত ‘সবুজ ক্যাস্পাস প্রকল্পের কথা। ভাবেন সবুজায়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের এখনি মোক্ষম সময়। এই নির্দেশনাকে মাথায় রেখে করোনার ছুটি ও বর্ষার সুফল কাজে লাগান রূমন রেজা। তাঁর সার্বক্ষনিক তত্ত্বাবধানে কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সহযোগিতায় ইতোমধ্যে সবুজে ভরে উঠছে কলেজের প্রস্তাবিত শেখ কামাল ভবনের মাঠ। ভবনের সামনের ময়লার স্তূপ পরিণত হয়েছে ফুলের বাগানে।

অনেকটা সবার অলক্ষ্যেই দ্রুততম সময়ে এমন সৃজনশীল গাছ ও ফুল বাগানের নান্দনিক রূপ দর্শনার্থীদের নজর কাড়ে। ক্যাম্পাসের পশ্চিম কোনেও গড়ে তোলা হয়েছে সুসজ্জিত পরিপাটি বাগান। সবকিছু মিলিয়ে পুরো পরিবেশটাই পাল্টে দিয়েছে। সবুজ ক্যাম্পাস গড়ে তোলার পরিকল্পনার অংশ হিসেবে নানা ধরণের ফুল, ফল ও ঔষধি গাছে সাজিয়ে তোলা হয়েছে নব নির্মিত ৭তলা ভবনের চারপাশ ও প্রতিষ্ঠানটির উত্তর পশ্চিম কোনে।এ পর্যন্ত বাগানে বিভিন্ন রকমের ফুল গাছ লাগানো হয় তার মধ্যে রয়েছে গোলাপ, গন্ধরাজ, শিমুল, টগর, জবা, হাসনা হেনা, বাগানবিলাস, ঝুমকা, বেলী, শেফালী, কাটামুকুট, নয়নতারা, কসমস, কামিনী, নীলকন্ঠ, পলাশ সহ হরেক রকমের ফুল।

বিষেরবাশিঁ.কম/ডেস্ক/মৌ দাস

Categories: নারায়ণগঞ্জের খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.