মঙ্গলবার ২৯ কার্তিক, ১৪২৫ ১৩ নভেম্বর, ২০১৮ মঙ্গলবার

চট্টগ্রামের তরুণ শিল্পী মানিকের চমক!

বিষেরবাঁশী ডেস্ক: চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী থানার এক প্রতিভা, যিনি নিজ প্রচেষ্টা ও সাধনায় নিজেকে করেছে অলংকৃত, শ্রোতা সাধারণকে করেছে বিমোহিত। যার নাম হয়তো ভবিষ্যৎ শ্রোতাদের মাঝে আন্দোলিত হতে পারে। চট্টগ্রামবাসী যাকে নিয়ে একদিন গর্ববোধ করবে বলে দৃঢ় বিশ্বাস। একদিন হয়তো যার কন্ঠে বিমোহিত হতে পারে সারা বাংলার শ্রোতা সাধারণ।
তিনি প্রত্যন্ত অঞ্চলে জন্ম নেওয়া এক স্বপ্নবাজ তরুন মোঃ সালাউদ্দিন কাদের মানিক। ১৯৮৪ সালে চট্টগ্রামের বাঁশখালী থানার অন্তর্গত সরল গ্রামের সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বরকত আলী মাঝির বাড়ীর মরহুম হাজী জমির উদ্দিন এবং পশ্চিম বাঁশখালীর খ্যাতিমান জমিদার মরহুম হাজী নবাব আলী চৌধুরীর ৫ম কন্যার ৫ম সন্তান। গ্রামেই যাহার শৈশব কৈশোর কাটে। স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কৃত্বিত্বের সাথে প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করে একই এলাকার সরল আমিরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে মাধ্যমিক শিক্ষা সফলভাবে শেষ করেন।
মাধ্যমিক পরিক্ষা সম্পন্ন করার পর চট্টগ্রাম শহরে পাড়ী জমায় উচ্চ শিক্ষা অর্জনের তাগিদে। চট্টগ্রাম কলেজ হতে ¯œাতকোত্তর এবং চট্টগ্রাম আইন কলেজ থেকে এল.এল.বি সম্পন্ন করে বর্তমানে একটি স্বনামধণ্য ব্যংকে অফিসার পদে কর্মরত আছে।
সালাউদ্দিন কাদের মানিকের গ্রামে সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এলাকায় তিনি মানিক নামে পরিচিত। গ্রামবাসী ও এলাকার গণ্যমাণ্য ব্যাক্তিদের সাথে আলাপকালে জানতে পারি “ছোট বেলা থেকে মানিকের গানের প্রতি অধম্য আগ্রহ ছিল। যে কোন পরিস্থিতিতে তড়িৎ নিজের ভাষার গান গাওয়ার সক্ষমতা ছোট বেলা থেকে তাঁহার ছিল। এলাকার যে কোন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে মানিকের উপস্থিতি ছিল শতভাগ। যার সুবাধে বিভিন্ন সময় গান করার সুযোগ সৃষ্টি হত। প্রাণ ভরে শ্রোতারা উপভোগ করতো মানিকের গান।
এলাকাবাসী ও বন্ধু বান্ধবের আক্ষেপ, যদি যথাযতভাবে প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করা হতো, তাহলে এতদিনে সত্যিকার অর্থে নামকরা একজন শিল্পী হিসাবে নিজেকে গড়ে তুলতে পারতো।”
চট্টগ্রাম শহরে পাড়ি জমানোর পর মানিক আবার গানের প্রতি মনোযোগী হয়। যার প্রচষ্টোয় অনেক সাধনার পর প্রথমবারের মত ঈদুল ফিতরে নিজের কথা ও সূরে ৫টি গান জনপ্রিয় অনলাইন ভিডিও মাধ্যম ইউটিইবে প্রকাশ পায়। গান গুলো যথাক্রমে:

১) আমার ভাগ্য চাকা ঘুরছে

২) ও মাইয়্য

৩) তুমি এতো বিবেকহীনা

৪) দেখো সুখের পাখি

৫) সন্ধ্যবেলায় সাগর পাড়ে।

গানগুলোরইউটিউবলিংক https://www.youtube.com/channel/UCkXPyDzOZfDovKAoK8dx5Bw
গানের বিষয়ে তাঁহার সাধনা ও সফলতা নিয়ে তরুণ শিল্পী মানিকের সাথে একান্ত আলাপ কালে বলেন, “গানের প্রতি একটি টান ছোট বেলা থেকে আমার ছিল। যে কোন ধরনের গানের শব্দ আমার কানে পৌছলে আমি যেন ঐ সুরে হারিয়ে যেতাম। প্রত্যন্ত অঞ্চলে জন্ম নেওয়ায় যথাযথ সুযোগ সুবিধা না পাওয়ায় সেভাবে আর নিজেকে গড়ে তুলতে পারিনি। যখন মাধ্যমিক পরিক্ষা শেষে চট্টগ্রাম শহরে পাড়ি জমাই, তখন থেকে আমি মনে প্রাণে চেষ্টা করতে থাকি গান নিয়ে কিছু একটা করার।
বিভিন্ন গানের অনুষ্টানে যাতায়াতের সুবাধে অনেকের সাথে আস্তে আস্তে পরিচিত হই। তাদের সাথে আলাপ করে এটি বুঝতে পারি- একজন উস্তাদ ছাড়া সামনে এগুনোর সুযোগ নেই। তাই একজন মনের মত উস্তাদ খুঁজতে আরম্ভ করি। তখন হিতাকাঙ্খি হিসাবে হাত বাড়িয়ে দেন শ্রদ্ধেয় গীতিকার ও সাংবাদিক আবছার উদ্দিন অলি। তাঁহার সার্বিক সহযোগিতায় অবশেষে পেয়ে যাই এক স্বনাম ধন্য উস্তাদ, যাহার হাতে প্রথম কোন গানে ভিন্ন মাত্রা যোগ করলাম। তিনি হচ্ছে বাংলাদেশ বেতার চট্টগ্রাম কেন্দ্রের মিউজিশিয়ান উস্তাদ সৈয়দুল হক। যাহার হাতে দীর্ঘ ৭ বৎসর ধরে গানের তালিম নিচ্ছি এবং পাশাপাশি খ্যাতিমান শিল্পী চট্টগ্রাম বাঁশখালীতে জন্ম নেওয়া ফকির সাহাবউদ্দিন এর নিকট তালিম নিচ্ছি। যদিও বা গ্রামে থাকাকালিন কিছুদিনের জন্য উস্তাদ জিতেন্দ্র লাল এর কাছে তালিম নিয়েছিলাম।
যদিও ছোট বেলা থেকে গান গাওয়ার চেষ্টা করতাম। কিন্তু ২০০১ সাল হতে মূলত গান নিয়ে চুড়ান্ত ভাবে ভাবতে আরম্ভ করি। তখন থেকে আমি বেশ কয়েকটি গান নিজে নিজে রচনা করি।
দীর্ঘ প্রচেষ্টা পর গানগুলোতে নিজেই সূর দিয়ে নিজের কন্ঠে রেকর্ড করাতে সক্ষম হই। যা এই ঈদুল ফিতরে জনপ্রিয় অনলাইন ভিডিও মাধ্যম ইউটিউবে প্রকাশ করি।
গানগুলো প্রকাশ হওয়ার পর শ্রোতাসাধরনের যথেষ্ট সাড়া পাই। শ্রোতাদের উচ্ছাসিত আবেগ আমাকে আরো বেশী অনুপ্রেরণা দেয়। যার ফলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি- আগামী ঈদুল আযহায় গানগুলোকে নতুন আঙ্গিকে মিউজিক ভিডিওর মাধ্যমে শ্রোতা সাধারণকে পৌছে দিব। সবার কাছে দোয়া কামনা করছি।”
পরিশেষে বলতে হয়, বাংলাদেশের সংগীত অঙ্গনে নিজের কথা ও সূর এবং কন্ঠে গান করা শিল্পীর ক্ষুদ্র তালিকায় হয়তো আরেকটি নাম রেকর্ড হতে চলছে।

বিষেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/হৃদয়

Categories: Uncategorized

Leave A Reply

Your email address will not be published.