মঙ্গলবার ২৪ চৈত্র, ১৪২৬ ৭ এপ্রিল, ২০২০ মঙ্গলবার

আদিবাসী যুবককে অপহরণ ও মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন

বিষেরবাঁশি.কম: নওগাঁ জেলার ধামইরহাটে এবার আদিবাসী যুবককে উঠিয়ে নিয়ে মধ্য যুগীয় কায়দায় নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও থানা পুলিশের সহযোগিতায় আদিবাসী যুবককে উদ্ধার করে ধামইরহাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ বিষয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। জানা গেছে, উপজেলার জাহানপুর ইউনিয়নের বড়শিবপুর গ্রামের রবিয়া শিং এর ছেলে জহন লাল শিং পত্নীতলা পাটিচরা ইউনিয়নের কাশিপুর মৌজার সুজন চৌধুরী’র একটি ইট ভাটায় কাজ করেন, তিনি লেবারদের সর্দারও বটে। ২১ মার্চ দিনের বেলায় মঙ্গলবাড়ী বাজার থেকে ১০/১৫ টি মোটরসাইকেলবাহী একটি সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে লেবার সর্দার জহন লাল শিংকে অপহরণ করে। তাকে কাশিপুর ইটভাটায় নিয়ে সন্ত্রাসী শাহীন ও বাবুল জহন লালকে অমানুষিক ভাবে নির্যাতন করলে জহন লালের শরীরের পুরো অংশ মারপিটের কারণে কালো কালো দাগের সৃষ্টি হয়। স্ত্রী শ্যামলী রানী ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ওসমান আলী ঘটনার বিষয়ে থানায় খবর দেন। জহন লাল শিং জানান, তার হাত, পা-উরু-রানে লাঠি ও রড দিয়ে মারপিট করেছে এবং পত্নীতলায় নিয়ে গিয়ে আমার কাছ থেকে সাদা ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়েছে সন্ত্রাসীরা। ধামইরহাট থানার ওসি শামীম হাসান সরদার বলেন, বিষয়টি জেনে তাৎক্ষনিক ভাবে পত্নীতলা থানায় অবগত করি ও ইউপি চেয়ারম্যান ওসমান আলী, ধামইরহাট এবং পত্নীতলার থানা পুলিশের সহযোগিতায় জহন লালকে মধ্যরাতে উদ্ধার করা হয়, এ বিষয়ে ধামইরহাট থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং আসামীকে গ্রেফতারের জন্য ধামইরহাট-পত্নীতলা থানা পুলিশ মাঠে কাজ করছে।  

Categories: অপরাধ ও দুর্নীতি,সারাদেশ

Leave A Reply

Your email address will not be published.