মঙ্গলবার ২৪ চৈত্র, ১৪২৬ ৭ এপ্রিল, ২০২০ মঙ্গলবার

সিদ্ধিরগঞ্জের পদ্মা ডিপোর নিজস্ব রাস্তায় চোরাই তেল বিক্রয়: র‌্যাব-১১’র হস্তক্ষেপ কামনা

বিষেরবাঁশি.কম: নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জের পদ্মা ডিপোর নিজস্ব রাস্তার দু’পাশে চোরাই তেল কেনার জন্য গড়ে উঠেছে প্রায় অর্ধ শতাদিক তেলের দোকান। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিদের্শ থাকার পরেও রহস্য-জনক কারনে বন্ধ হচ্ছেনা এই চোরাই তেলের দোকান গুলো। প্রতিদিন এ দোকান গুলোতে প্রায় কয়েক হাজার লিটার চোরাই তেল বিক্রয় করছে ডিাপোর ইনচার্জ মাহাবুবুল আলমের সহায়তায় ট্যাংকলরির চালকরা। ফলে সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব। স্থানীয় প্রশাসন নীরব ভূমিকা পালন করছে। সচেতন মহল র‌্যাব-১১’র হস্তক্ষেপ কামনা করছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, গত ১২’আগষ্ট ২০১৯ইং তারিখে পদ্মা ডিপোতে ইনচার্জ হিসেবে যোগদান করেন মাহাবুবুল আলম। যোগদানের পর থেকে প্রতিদিন চুরি হচ্ছে প্রায় ৩’হাজার লিটার তেল (বিমানের তেল), মাসে ৯০’হাজার লিটার যার বাজার দর প্রায় ৫৭’লাখ টাকা বছরে প্রায় ৭’কোটি টাকা। মাহাবুবুল আলম যোগদানের পর থেকে বার্মাশিল এলাকার বিশিষ্ট তেল চোররা গড়ে তোলে ইনচার্জের সাথে সু-সম্পর্ক। তারা প্রতিদিন ডিপোতে গিয়ে ডিপোর ইনচার্জ মাহাবুবুল আলমের সাথে আড্ডা মারাসহ চোরাই তেলের হিসেব নিকাশ করে চলে আসে। তেল চুরির জন্য ডিপোর ইনচার্জ মাহাবুবুল আলম ফিল্ড ষ্টাফদের(ক্যাজুয়াল ষ্টাফ) ব্যবহার করে থাকেন। গত কয়েক দিন আগে দুদকের কর্মকর্তারা ডিপোতে এসে পদ্মা ডিপোর ইনচার্জ মাহাবুবুল আলমকে রাস্তার দু’পাশে গড়ে উঠা প্রায় অর্ধ শতাদিক দোকান বন্ধের জন্য বলে যায়। রহস্য-জনক কারনে ডিপোর ইনচার্জ মাহাবুবুল আলম এখন পর্যন্ত এ চোরাই তেলের দোকান বন্ধ করছে না। এ ব্যাপারে পদ্মা ডিপোর ইনচার্জ মাহাবুবুল আলম বলেন, এ অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা দোকানগুলো আমাদের জায়গায় নয়। এ দোকানগুলো উচ্ছেদ করতে ডিসি বরাবর লিখিত আবেদন করা হয়েছে। তিনি ম্যাজিষ্ট্যাট দিলে আমরা প্রশাসনের সহায়তায় বন্ধ করে দিব। বন্ধা করা প্রশাসনের কাজ। এ ব্যাপারে পদ্মা ডিপোর ঢাকা বিভাগের (এজিএম) ইব্রাহিম হাওলাদার বলেন, সিষ্টেম লসের বিষয়টি আমার জানা নাই, আপনি ডিপোর ম্যানাজারকে জিজ্ঞাসা করেন, বিষয়টি তারাই জানেন। এ ব্যাপারে র‌্যাব ১১’র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জসিম উদ্দিন বলেন, আমরা এ যাবৎ তেল চোরাইকারবারিদের বিরুদ্ধে ২’ডজনেরও বেশি মামলা দিয়েছি। কারো কারো নামে ২/৩’টি মামলা আছে। ডিপো প্রশাসন আমদেরকেও চিঠি দিয়েছে। চোরাই তেলের দোকান বন্ধের লক্ষে জেলা প্রশাসন ম্যাজিষ্ট্যাট নিয়োগ করলে আমরা তাদের সহায়তা করবো। বিষেরবাঁশি.কম/রাসেদ উদ্দীন ফয়সাল/মৌ দাস

Categories: অপরাধ ও দুর্নীতি,নারায়ণগঞ্জের খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.