সোমবার ১১ ফাল্গুন, ১৪২৬ ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সোমবার

বক্তব্যে বিব্রত নারায়ণগঞ্জের এসপি

অনলাইন ডেস্ক:  নারায়ণগঞ্জে যোগদান করেই পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম এক মতবিনিময় সভায় কনস্টেবলদের নিয়ে বক্তব্য দিয়ে বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে পড়েছেন। বক্তব্যের কিছু অংশ নিয়ে সমালোচনা উঠায় তিনি দুঃখ প্রকাশ এবং ক্ষমা প্রার্থনা চেয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

মঙ্গলবার (৭ জানুয়ারি) রাতে নিজের ফেসবুক থেকে একটি পোস্টের মাধ্যমে তিনি এই ক্ষমা চান। ফেসবুকে পোস্টে তিনি লেখেন, ‘আমি মোহাম্মদ জায়েদুল আলম। পুলিশ সুপার হিসেবে নারায়ণগঞ্জ জেলায় যোগদানের পর এক মতবিনিময় সভায় আলোচনায় ফোর্স প্রসঙ্গে কথা বলি। আমার বক্তব্য খন্ডিত আকারে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হচ্ছে। আমার বক্তব্যে আমার প্রিয় পুলিশ বাহিনীর কোনো সদস্য কষ্ট পেলে আমি ক্ষমা প্রার্থনা করছি’।

গত ২৯ ডিসেম্বর জেলা পুলিশ সুপার সম্মেলনকক্ষে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে পুলিশের কনস্টেবল নিয়ে জায়েদুল ইসলাম বলেন, পুলিশে ভালো পোলা ভর্তি করে কনস্টেবলে? সবাই কয় জন্মের পরে আমার পোলা ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার বানাইবো। কেউ তো কয় না পুলিশ কনস্টেবল বানাইবো। এইটা বলে? তাইলে কোনটা পুলিশ কনেস্টেবল হয়? যে পোলা আইএ পাস বা মেট্রিক পাস করছে। এ ঘুরে বেড়ায় বাপ-মায় টিকতে পারে না। তখন এমপি-মন্ত্রী-এসপি-ডিসি কারে ঘুষ দেবো কি করবো না করবো তখন পুলিশে ঢুকায়। কারণ এইটা শয়তান এইটারে পুলিশে ঢুকাইতে হইবো। এইটারে ঘরে রাখতে চায় না। এইতো অবস্থা? কেউতো কয়না আমার ছেলে ব্রিলিয়েন্ট পুলিশে গিয়ে মানুষের ভালো সেবা করবে। এইটা কেউ বলে? সেখান থেকে আইনা ট্রেনিং দেওয়াইয়া এগুলারে ভালো করা এতো সহজ না।

সে কারণে আমি বলতে পারবো না যে আমার সব পুলিশ ভালো। বাংলাদেশে ৯৯ জন লোক আমরা আইন ভাঙতে চাই। সেখানে আইন কীভাবে মানাবো? জায়েদুল আলমের এ বক্তব্য নিয়ে পুলিশ প্রশাসনের ভেতরে অসন্তোষ সৃষ্টি হয়। কনস্টেবল থেকে শুরু করে সিনিয়র কর্মকর্তাদের মধ্যেও চলে ক্ষোভ হতাশা।

নিউজ২৪.ওয়েব/ সংবাদদাতা /নিরাক

Categories: নারায়ণগঞ্জের খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.