মঙ্গলবার ২৫ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ মঙ্গলবার

শিল্পমন্ত্রীর কথায় বোকা হয়েছি!

নিজস্ব প্রতিবেদন (সুভাষ সাহা): “শিল্পমন্ত্রীর কথা শুনে বাজারে গিয়ে ধোঁকা খেলাম! দোকানদার পিয়াজের দাম চাইল কেজি ১৭০ টাকা”

সকালের অভিজ্ঞতাঃ ৭০টাকা দিয়ে চলে আসছিলাম।পেছন থেকে দোকানী ডাকছেন, ‘আরে ভাই,যাচ্ছেন কোথায়? বাকী টাকা দিয়ে যান,৭০ টাকা না, ১৭০ টাকা।

শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ হুমায়ুন গতকাল মঙ্গলবার মিডিয়ার কাছে বলেছিলন, পিয়াজের দাম স্বভাবিক হয়ে এসেছে। সাধু সাধু…. ভেবেছিলাম ৭০ টাকায় নামল। বিশ্বাস করে সকালে বাজারে গিয়ে ধরা খেয়েছি!

সুভাষ সাহার ফেসবুক পোস্ট পড়ে সিনিয়র সাংবাদিক খন্দকার মুহিতুল ইসলাম রঞ্জু মন্তব্যে লিখেন, “নিজেদের উৎপাদিত পিঁয়াজ দিয়ে কখনোই আমাদের বছর চলে না। ভারত, পাকিস্তান বা মায়ানমার থেকে আমদানি করে ঘাটতি মেটাতে হয়। ভারতে পিঁয়াজ উৎপাদনের প্রধান রাজ্য মহারাষ্ট্র। সেখানে প্রবল বন্যায় পিঁয়াজের ক্ষতি হয়েছে। দিল্লীতেই প্রতি কেজি পিঁয়াজ এখন ১ শ টাকা কেজি। তারা পিঁয়াজ আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তার মানে রফতানিকারক দেশই এখন এই পণ্য আমদানি করবে।

বাংলাদেশে যাদুবলে কোনো ফেরেশতাও তো এখন কমদামে পিঁয়াজ দিতে পারবে না। মন্ত্রীই আশ্বাস দিক আর ভগবানই আশ্বাস দিক।তবে বাংলাদেশের উচিত ছিল, ভারতের উপর নির্ভর না করে অন্য দেশ থেকে আমদানি করা। মায়ানমার ও পাকিস্তানের সাথে আমাদের সম্পর্ক ভাল নয়। অতিদ্রুত অন্য দেশে যাওয়াও হয়ত সম্ভব হয় নি।স্টকে যা ছিল, তার সাথে মায়ানমার থেকে অল্প পরিমাণে আনা পিঁয়াজ দিয়ে বাজার সামাল দেয়া হচ্ছে। নতুন পিঁয়াজ বাজারে না ওঠা পর্যন্ত এ অবস্থাই চলবে”।

(ফেসবুক ওয়াল থেকে)

বিষেরবাঁশি.কম/ডেস্ক/মৌ দাস

Categories: নারায়ণগঞ্জের খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.