শুক্রবার ২৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ শুক্রবার

এসপি হারুন চলে যাওয়ায় দখলদারদের মহোৎসব!

অনলাইন ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নগর ভবনে সোমবার (১১ নভেম্বর) দুপুরে সম্মেলন কক্ষে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সভাপতির আসনে নাসিক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বক্তব্য রেখেছেন।

মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, ‘ফুটপাত নিয়ে এক বছর আগে আমার উপর আক্রমন করা হয়েছে। আমার অনেক লোক আহতও হয়েছে। তারপরও ফুটপাতে হকার বসেছে। এ নিয়ে এসপি হারুন সাহেবকে আমরা চিঠি লিখেছিলাম। তিনি নিজ উদ্যোগে এগুলো পরিস্কার রাখার চেষ্টা করেছেন। এখন তিনি চলে যাওয়ায় নারায়ণগঞ্জ যেন আবার স্বর্গরাজ্য হয়ে গেছে। যার যার মতো করে সে সে পূর্বের জায়গায় ফেরত এসেছে। সকল অবৈধ যানবাহন স্ট্যান্ড পূর্বের জায়গায় ফেরত এসেছে।

এটা একটা সহজ প্রক্রিয়া যে একজন এসপি আসবে চলে যাবে, ডিসি আসবে চলে যাবে ও মেয়র আসবে চলে যাবে কিন্তু প্রতিষ্ঠানের কাজ তো থেমে থাকার কথা না। তাহলে কিভাবে নারায়ণগঞ্জ শহর আবারও স্বর্গরাজ্য হয়ে গেল। সবাই খুশি হয়ে গেল কারণ আর উচ্ছেদ নেই, ফুটপাত যেভাবে আছে সেভাবে বসবে, যেভাবে ছিল সেভাবে চলবে। এএসপির দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলছি এগুলোর বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নিন। মানুষকে নিঃশ্বাস ফেলার সুযোগ দিন।’

সেভ দ্য চিলড্রেন ও সিপিডি এর আয়োজনে ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের সহযোগিতায় ‘নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা এবং নগর দুর্যোগ সহনশীল প্রকল্প অবহিতকরণ’ মতবিনিময় ওই সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলর, বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা ও সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও স্বেচ্ছাসেবক কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় উপস্থিত পুলিশের এএসপিকে উদ্দেশ্যে করে আইভী বলেন, আপনাদের চলমান কার্যক্রম যেন অব্যাহত থাকে। প্রতিষ্ঠান নারায়ণগঞ্জ থেকে উধাও হয়ে যায়নি। একজন ব্যক্তি পরিবর্তন হবে সেটা সরকারের সহজাত প্রক্রিয়া। ব্যক্তি পরিবর্তন হতে পারে কিন্তু প্রতিষ্ঠান না। তাই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম যেন চলমান থাকে।

মেয়র আইভী দায়িত্বপ্রাপ্ত এএসপিকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, আপনাদের চলমান কার্যক্রম যেন অব্যাহত থাকে। প্রতিষ্ঠান নারায়ণগঞ্জ থেকে উধাও হয়ে যায়নি। একজন ব্যক্তি পরিবর্তন হবে সেটা সরকারের সহজাত প্রক্রিয়া। ব্যক্তি পরিবর্তন হতে পারে কিন্তু প্রতিষ্ঠান না। তাই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম যেন চলমান থাকে।

গত ৩ নভেম্বর রবিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদকে পুলিশ হেড কোয়াটারে বদলি করা হয়। আর গত ৭ নভেম্বর বৃহস্পতিবার জেলা পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিদায় জানানো হয়। এরপর থেকে এসপি হারুনের কর্মকান্ড নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, এসিপ হারুন ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিমের বিরুদ্ধে গত ১ নভেম্বর শুক্রবার রাতে পারটেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান এমএ হাশেমের ছেলে শওকত আজিজ রাসেলের স্ত্রী ফারা রাসেল ও ছেলে আনাব আজিজকে বাসা থেকে তুলে আনার অভিযোগ ওঠে। আর এই অভিযোগ সহ একাধিক অভিযোগের কারণে তাকে বদলি করা হয়েছে।

তবে এ বিষয়ে এসপি হারুন বিদায়ী বক্তব্যে কান্না করে বলেছেন, ‘আমি কোন ভুল করি নাই। সব তদন্তের প্রমাণ হবে। আমি নারায়ণগঞ্জের কল্যাণে সবসময় কাজ করে গিয়েছি।’

আইভী আরো বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ শহরটা বাসের (পরিবহন) নগরী হয়ে উঠেছে। নারায়ণগঞ্জ শহরের সর্বত্র বাস, টেম্পু, রিকশা, অটোরিকশা, সিএনজি, কাভার্ডভ্যান এগুলোই দেখা যায়। নগর ভবন, ফায়ার সার্ভিস স্টেশন আমরা সবাই সব সময় জিম্মী হয়ে থাকি। রাস্তা, বাস টার্মিনাল, ট্রাক স্ট্যান্ড সিটি কর্পোরেশনের কিন্তু অনুমোদন দেয় বিআরটিএ। এটাই সমন্বয়হীনতা। এত দিন আমরা বলে এসেছি কিন্তু এখনও প্রশাসনও চায় সম্মিলিত ভাবে কাজ করার জন্য। এখন সবাই উপলব্দী করছে এটা আসলে কতটা প্রয়োজন যে, সম্মিলিত চেষ্টা ও সমন্বয় করে কাজ করা। কারণ দিনের পর দিন আমাদের দেশে ঝুঁকি বেড়ে যাচ্ছে।’

মেয়র আইভী বলেন, আমি বার বার বলছি যত্রতত্র রাস্তার উপর কেন গাড়ি থাকবে? কেন ট্রাক স্ট্যান্ড থাকার পরও কেন পুরো শহর ট্রাকে ভরা থাকবে? কি কারণে রাতের বেলা ট্রাক চলাচল করবে না? কেন ট্রাক শ্রমিক নেতা ও মালিক সমিতির নেতারা কথা দিয়ে কথা রাখে না? রাত ৮টার পর থেকে সারা শহরে বাস থাকে।

আন্তঃজেলা বাসগুলোও শহরের ভেতরে ঢুকে পড়ে। আমি শুনেছি এসব প্রতিটি বাস থেকে ৫০০ টাকা করে নেওয়া হয়। এএসপি সাহেব এ টাকাগুলো কে নেয় খোঁজে বের করবেন। এ টাকা শ্রমিক নেয়, মালিক নেয়, নাকি এনসিসি নেয় এগুলো বের করা উচিত। নাকি আমার মতো নেতারা নেয়। এটা অত্যন্ত জরুরী যে শহরের ভেতর থেকে কে টাকা তুলে। রাইফেল ক্লাবের সামনে অবৈধ স্ট্যান্ড, যততত্র পুরানো সিএনজি স্ট্যান্ড এ সবকিছুই দ্রুত উচ্ছেদ করা প্রয়োজন।

সর্বশেষে মেয়র আইভী সপ্তাহ কিংবা মাস ব্যাপী কয়েকবার উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করতে জেলা প্রশাসন থেকে ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেওয়ার জন্য সিটি কর্পোরেশনের সিও এর মাধ্যমে ডিসি অফিসে যোগাযোগের নির্দেশ দেন।

এএসপি সুভাষ সাহার বক্তব্যে সংহতি প্রকাশ করে মেয়র আইভী বলেন, ‌‍’সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড় বুলবুল যে আঘাত এনেছে এটা প্রকৃতিক। আল্লাহ দিয়েছেন আবার তিনিই বড় কোন ক্ষতি ছাড়াই রক্ষা করেছেন। তবে আমাদের মানুষ কর্তৃক যেসব দুর্যোগ সৃষ্টি হচ্ছে সেগুলো থেকে রক্ষার জন্য আমাদেরই কঠিন ভাবেই ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।’

সভায় ফায়ার সার্ভিসের বিভিন্ন দাবির প্রেক্ষিতে মেয়র আইভী বলেন, ‘স্বেচ্ছাসেবক কর্মীদের জন্য একটা গাড়ি বরাদ্ধ দেওয়া হবে। যাতে তারা দ্রুত সিটি কর্পোরেশন এরিয়ার ঘটনাস্থলে পৌছাতে পারে। এছাড়াও তাদের জন্য খাবার ও পানির ব্যবস্থা করা হবে।’

কাউন্সিলর অফিসে স্বেচ্ছাসেবক কর্মীদের সরঞ্জাম রাখার জন্য তিনি সকল কাউন্সিলরদের প্রতি আহবান জানান। এছাড়াও মেয়র আইভী সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় নতুন করে ১০ ও ১৪নং ওয়ার্ডে স্বেচ্ছাসেবক গড়ে তোলার বিষয়ে সেভ দ্য চিলড্রেনের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্য করে মেয়র আইভী বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের এলাকায় ২০০ স্বেচ্ছাসেবক কর্মীকে প্রশিক্ষণ দিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে। কিন্তু প্রয়োজনের সময় তাদের সেই ভাবে পাওয়া যায় না। তাই এক্ষেত্রে সচেতন হতে হবে। আমরা স্বেচ্ছাসেবকের কোয়ান্টিটি চাই না, কোয়ালিটি সম্পূর্ণ চাই। তাদের নামের তালিকা, ফোন নাম্বার সহ ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ, সিটি কর্পোরেশন, কাউন্সিলর অফিস সর্বত্র দিতে হবে। যাতে প্রয়োজনে সবাইকে দ্রুত পাওয়া যায়।

এছাড়াও স্বেচ্ছাসেবকদের মধ্যে যারা ভালো কাজ করবে তাদের পুরস্কার দিতে হবে। এজন্য সিটি কর্পোরেশন সকল সহযোগিতা করবে।

বিষেরবাঁশি.কম/ডেস্ক/মৌ দাস

Categories: নারায়ণগঞ্জের খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.