সোমবার ১ পৌষ, ১৪২৬ ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ সোমবার

কলেজ ছাত্রের শরীর ফুটন্ত গরম পানি দিয়ে ঝলসে দেয়া হল

অনলাইন ডেস্ক: রাজাপুরের মঠবাড়ি ইউনিয়নের পশ্চিম ইন্দ্রপাশা গ্রামে গায়ে টর্চ লাইটের আলো মারাকে কেন্দ্র করে শনিবার (১২ অক্টোবর) খায়রুল ইসলাম নামে এক ছাত্রের শরীরের চায়ের কেটলির ফুটন্ত গরম পানি দিয়ে ঝলসে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে।

খায়রুল ইসলাম শামসের আলী হাওলাদারের ছেলে। সে বরিশাল সরকারি সৈয়দ হাসেম আলী কলেজের অনার্স (রাষ্ট্রবিজ্ঞান) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র।

এ ঘটনায় কলেজ ছাত্র খায়রুল ইসলাম বাদি হয়ে রাতে ৬ জনের নামে রাজাপুর থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ উপজেলার সাউথপুর গ্রামের মৃত বজলু মীরের ছেলে ইকবাল মীর (৩০) কে গ্রেফতার করে রোববার দুপুরে ঝালকাঠি আদালতে প্রেরণ করেছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ওই এলাকায় খায়রুল ইসলাম ডিস বিল উত্তোলন করে বাড়ি ফেরার পথে উপজেলার বদরপুরের পলাশের চায়ের দোকান এলাকায় এলে রাস্তার পাশে অন্ধকারের মধ্যে একটি ভাঙা ঘরে শব্দ পেয়ে খায়রুল ইসলাল ওই ঘরে টর্চ লাইট মারে।

লাইটের আলো ঘরের মধ্যে থাকা ইকবাল মীরের গায়ে পড়লে ইকবাল ক্ষিপ্ত হয়ে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গালমন্দ করে এবং এক পর্যায়ে খাইরুলকে আসামীরা মারধর শুরু করলে জীবন বাচাতে খায়রুল দৌড়ে পলাশের চায়ের দোকানের মধ্যে আত্মরক্ষার জন্য গেলে সেখান থেকে তাকে টেনে হেচড়ে বাহিরে বের করে চুলায় রাখা কেটলির ফুটন্ত গরম পানি দিয়ে খালরুলে গায়ে ঢেলে দেয়। গরম পানিতে খায়রুলের গাড়ে, কাধ, ডান হাতসহ শরীরের বিভিন্ন স্থান পোড়া জখম ও ফোসকা পড়ে ঝলসে যায়।

এসময় খায়রুলের সাথে থাকা ডিস বিল উত্তোলনের ৪ হাজার ২শ টাকা এবং কলেজের পরিচয়পত্র ছিনিয়ে নেয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রাজাপুর থানার এসআই রবিউল ইসলাম জানান, মামলার ১ নম্বর আসামী ইকবাল মীরকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে, অন্য আসামীরা পলাতক রয়েছে, তাদেরও গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

বিষেরবাঁশি.কম/ডেস্ক/মৌ দাস.

Categories: অপরাধ ও দুর্নীতি,সারাদেশ

Leave A Reply

Your email address will not be published.