সোমবার ১ আশ্বিন, ১৪২৬ ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সোমবার

স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করে স্বামী নিজেও বিষ পান করে আত্মহত্যা করলেন

অনলাইন ডেস্ক: স্বামী-স্ত্রী দু’জনই ছিলেন বিবাহিত। আগের বিয়ের সম্পর্কে বিচ্ছেদ ঘটিয়ে প্রেমের টানে সুখের সন্ধানে নতুন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন মামাতো-ফুফাতো ভাই-বোন। স্ত্রীর আগের সংসারের নয় বছরের এক ছেলে ছিল। ছেলেকে নিয়ে দুজনের নতুন সংসার শান্তিতেই চলছিল। কিন্তু বিয়ের কয়েকমাস পর ঘটে বিপত্তি।বর্তমান স্বামী জানতে পারেন এখনোও তার স্ত্রী পূর্বের স্বামীর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে। এরই জের ধরে দুই জনের মধ্যে দাম্পত্য কলহ চলতে থাকে। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি চরম পর্যায়ে পৌছালে রাগে-ক্ষোভে স্ত্রীকে ধারালো বটি দিয়ে কুপিয়ে ও কাঠ দিয়ে আঘাত করে হত্যা করেন স্বামী। স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামী নিজেও বিষ পান করে আত্মহত্যা করেন। পারিবারিক কলহের জেরে এ ঘটনায় মা-বাবা দুজনকেই হারালো শিশু সন্তানটি।

গত সোমবার (৮ জুলাই) রাত সাড়ে ১২টায় ফতুল্লার দেওভোগের পশ্চিম আদর্শনগরের মোশারফ হোসেনের ভাড়াটিয়া বাড়িতে এমনই ঘটনা ঘটে। নিহত পলি আক্তার পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ থানার ময়দশ্রীনগর এলাকার শাহজাহান শিকদারের মেয়ে। আর নিহত জামাল হোসেন একই উপজেলার সুবিদখালীর সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে।নিহত পলি আক্তার ফতুল্লার বিসিক শিল্পনগরীর ফকির এ্যাপারেলসের শ্রমিক ও জামাল হোসেন শহরের চাষাঢ়ায় চা বিক্রি করতো। তারা দুজনেই সম্পর্কে মামাতো-ফুফাতো ভাই-বোন।

নিহতের ছোট ভাই মাঈনুল ইসলাম জানান, তার বড় বোন পলির আগে বিয়ে হয়েছিল। সেই সংসারে শাহাজাদা নামে নয় বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। আগের স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে মামাতো ভাই জামালকে বিয়ে করে। তারা ফতুল্লার পশ্চিম দেওভোগ আদর্শনগর এলাকায় মোশারফ হোসেন মিয়ার টিনশেডের ভাড়াটিয়া বাসায় বসবাস করে। সোমবার রাতে তাদের রুমে গিয়ে দেখতে পায় তার বোন পলি রক্তাক্ত অবস্থায় বিছানায় পড়ে রয়েছে। আর বোন জামাই জামাল হোসেনের মুখ দিয়ে ফেনা বের হচ্ছে। পরে তাদের দুইজনকে দ্রুত নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। হাসপাতালের ডাক্তার পলিকে মৃত ঘোষণা করে। পরে জামালকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করলে সেখানকার ডাক্তার জামালকে মৃত ঘোষণা করেন।

বাড়ির বাড়িওয়ালা মোশারফ হোসেন বলেন, ‘বছরখাকে আগে তারা আমার বাড়ির একটি ঘর ভাড়া নেয়। তাদের আগের বিয়ের কথা জানতাম না। এই ঘটনার পর তাদের আত্মীয় স্বজনকে জিজ্ঞেস করলে তারা জানায়, দু’জনই আগের থেকে বিবাহিত। আত্মীয়রা বললেন, নিহত পলি আগের স্বামীর সাথে ফোনে কথা বলতো । এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়াও হয়েছে বেশ কয়েকবার। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই এমন কান্ড ঘটিয়েছে।’

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘দু’জনেরই আগের সংসার ছিল। ওই সংসার বাদ দিয়ে তারা বিয়ে করেছে। পারিবারিক কলহের জের ধরেই এ ঘটনা ঘটেছে।’

বিষেরবাঁশি.কম/ডেস্ক/মৌ দাস.

Categories: অপরাধ ও দুর্নীতি,নারায়ণগঞ্জের খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.