শনিবার ৯ ভাদ্র, ১৪২৬ ২৪ আগস্ট, ২০১৯ শনিবার

স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে হত্যায় বন্ধুর ফাঁসি ও ভৌমিকের সাত বছর কারাদন্ড

বিষেরবাঁশী ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জ নগরীর আমলাপাড়া এলাকার স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর ঘোষকে বাসায় ডেকে নিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে লাশ সাতটুকরো করে গুমকরার অভিযোগে বন্ধু পিন্টু দেবনাথকে মৃত্যুদন্ড এবং তার সহযোগি বাপেন ভৌমিককে সাত বছরের কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। অপর আসামী সেলিম মিয়া হত্যায় কান্ডের সাথে জড়িত থাকার কোন প্রমান না পাওয়া বেকুসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। বুধবার দুপুর দেড়টায় নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আনিছুর রহমান এই রায় ঘোষনা করেন। এ সময় ্আসামী পিন্টু দেবনাথ ও বাপেন ভৌমিক উপস্থিত ছিলেন।

আদালত সুত্রে জানাযায়, ২০১৮ সালের ১৮ জুন বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন কালিরবাজারে স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর ঘোষ। এ ঘটনার পর স্বর্ন ব্যবসায়ীর প্রবীর ঘোষের ছোট ভাই বিপ্লব ঘোষ বাদি হয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর থানায় একটি সাধারন ডায়রি করেন। নিখোঁজের তিনদিন পর প্রবীর ঘোষের ব্যবহৃত মোবাইল থেকে বিপ্লব ঘোষের মোবাইল ফোনে এক কোটি টাকা মুক্তিপন চেয়ে একটি মেসেস পাঠায়। পরে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ওই মেসেজের সুত্র ধরে ওই বছরের ৯ জুলাই পিন্টু দেবনাথের স্বর্ণের দোকানের কর্মচারী বাপেন ভৌমিককে কালিরবাজার থেকে গ্রেফতার করে। তার স্বিকারোক্তি অনুযায়ী প্রবীর ঘোষের ব্যবহৃত দুটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করে এবং প্রবীর ঘোষের বন্ধু পিন্টু দেবনাথকে গ্রেফতার করে । পরে তার দেখানো মতে আমলাপাড়া পিন্টু দেবনাথ যে বাসায় ভাড়া থাকতো ঠান্ডু মিয়ার বাড়ির সেফটি ট্যাঙ্কি থেকে পলিথিনের ব্যাগে ভরা পাচঁ টুকরা মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তার পরের দিন ওই বাসার পেছনের ডা: নুরুল ইসলামের বাড়ির গলি থেকে আরো দুই টুকরা উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশ পিন্টু দেবনাথ, বাপন ভৌমিক ও সেলিম মিয়াকে আসামী করে আদালতে অভিযোগ পত্র দাখিল করে। আদালতে ময়না তদন্তকারি ডাক্তার ও ১৬৪ ধারায় আসামীর জবানবন্দি রেকর্ডকারি জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটসহ ২৭ জন স্বাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহন শেষে এই রায় ঘোষণা করেন আদালত করেন। আদালত ৩০২ ধারায় পিন্টু দেবনাথকে মৃত্যুদন্ড এবং বাপেন ভৌমিক সাত বছরের কারাদন্ড প্রদান করে। এছাড়া ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ছয় মাসের কারাদন্ড প্রদান করেন। রায় মামলার বাদি বিপ্লব ঘোষ সন্তুষ্ট প্রকাশ করে বলেন, এই রায় উচ্চ আদালতের মাধ্যমে যত দ্রত কার্যকর হলেই আমার ভাইয়ের আতœা শান্তিপাবে।

তবে পিন্টু দেবনাথের দোকানের কর্মচারী বাপেন ভৌমিককে যে ধারায় দোষি সাবস্ত করে সাজা দেয়া হয়েছে তা উচ্চ আদালতে গেলে খালস পাবে।

বিষেরবাঁশী ডেস্ক/টিএস/হৃদয়

Categories: আইন-আদালত

Leave A Reply

Your email address will not be published.