শুক্রবার ১০ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ ২৪ মে, ২০১৯ শুক্রবার

‘বাংলার সিংহাম’ এসপি হারুন

বিষেরবাঁশী ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জবাসীর আস্থার বিশাল অংশটুকু যে অর্জন করতে পেরেছেন জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ তার চিত্র ফুটে উঠতে শুরু করেছে। সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জবাসীর পক্ষ থেকে তাকে ‘বাংলার সিংহাম’ আখ্যায়িত করে একটি ব্যানার দেখা গেছে। যা সকলের আকর্ষণের কেন্দ্র বিন্দুতে পরিণত হয়েছে।

চাষাঢ়া মোড় এলাকায় টানানো সেই ব্যানারে এসপি হারুনকে শুধু বাংলার সিংহাম উপাধিই দেয়া হয়নি। সাথে সিংহ পুরুষ এসপি হারুন উল্লেখ করে দীর্ঘজীবী হোন কথাটি উল্লেখ করা হয়েছে। তবে আসলে কারা কিংবাদ কাদের উদ্যেগে এমনটি করা হয়েছে সেটি জানা সম্ভবপর হয়নি।

অবশ্য এসপি হারুনের ক্ষেত্রে এমনটি করাই যেতে পারে। কেননা, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর নারায়ণগঞ্জবাসীর আগ্রহ রাজনীতিতে নয়, বরং তাদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ প্রশাসন।

গেলো চারমাসে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ প্রশাসন চাঁদাবাজ, ভূমিদস্যু, মাদক কারবারী, সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লাগাতার বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে। এসব অভিযানে যারা ধরা পড়ছেন তাদের ছাড়াতে অনেক রথী-মহারথীরাও দৌঁড়ঝাপ করছেন। তাতে কোন কাজে আসছেনা। নারায়ণগঞ্জের বর্তমান সুযোগ্য পুলিশ সুপার সেসবে কোন কর্ণপাত না করে অভিযান পরিচালনা করছেন। এতে আশ্বান্বিত হয়ে উঠছে নারায়ণগঞ্জবাসী। পুলিশ সুপারের উপর নারায়ণগঞ্জবাসীর আস্থা আরো বেড়ে গেছে।

পুলিশ প্রশাসনের এসব অভিযান অব্যাহত থাকায় নারায়ণগঞ্জে বিভিন্ন অপরাধ জনিত ঘটনা অনেক লোপ পেয়েছে। তাছাড়া চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসীরা গা ঢাকা দিয়েছে। রাজনৈতিক দলের নেতারাও তাদের দৌঁড়ঝাঁপ সীমিত করে রেখেছেন। একারণে নারায়ণগঞ্জের সার্বিক পরিস্থিতি সুস্থির রয়েছে। সাধারণ মানুষ মনে করে পুলিশ প্রশানের লাগাতার অভিযানের প্রভাব নারায়ণগঞ্জের সর্বস্থানে পড়েছে।

আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ছাড়াও নগরীতে সাধারণ মানুষকে স্বস্তি দিতে পুলিশ প্রশাসন নানা উদ্যেগ নেয়ায় পুলিশের উপর নারায়ণগঞ্জবাসীর আস্থা বৃদ্ধি পেয়েছে।

এছাড়া সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি চাঁদাবাজির মামলায় গত মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) গ্রেপ্তার করে যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলাম ওরফে ছোট নজরুলকে। চাঁদাবাজি মামলায় নজরুল এখন কারাগারে।

বন্দর থানার ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি মামলায় ১৮ এপ্রিল দুপুর আড়াইটায় সদর উপজেলার পাইকপাড়া এলাকা থেকে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) হাতে গ্রেপ্তার হন ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবু ওরফে ডিসবাবু। ইতিমধ্যে তার বিরুদ্ধে আরো কয়েকটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। একসময় নিজেকে স¤্রাট মনে করা ডিসবাবুর এমন নাজেহাল অবস্থা দেখে বেপরোয়া হয়ে ওঠা তার সাঙ্গপাঙ্গরাও এলাকা ছেড়েছে।

২০ এপ্রিল ফতুল্লা থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে র‌্যাব, পুলিশের তালিকাভুক্ত দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী ‘মূর্তিমান আতঙ্ক’ মোফাজ্জল হোসেন চুন্নুসহ ২৩ জন গ্রেপ্তার হয়। এ সময় চুন্নুর কাছ থেকে ৫ শতাধিক ইয়াবা ট্যাবলেট ও একটি বিদেশী পিস্তল উদ্ধার করা হয়। এরপরপরই চুন্নুর কথায় যেসব সন্ত্রাসী উঠবস করতো তারা লাপাত্তা বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

২২ এপ্রিল থেকে ২৩ এপ্রিল জেলায় ২৪ ঘন্টার মাদকবিরোধী বিশেষ অভিযানে গ্রেপ্তার হয় ২০ মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারী। এই অভিযানের পর বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে মাদক ব্যবসায়ী, সেবনকারী এবং তাদের সাঙ্গপাঙ্গরা গা ঢাকা দিয়েছে।

কয়েকটি সূত্র জানিয়েছে, ২০ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জের পাগলার দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মীর হোসেন মীরুকে গ্রেপ্তার, ৭ ফেব্রুয়ারি ফতুল্লার চিহ্নিত সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, মাদক কারবারি শাহ আলম গাজী ওরফে টেনু গাজীকে গ্রেপ্তার, নগরের ৫ নম্বর ঘাট এলাকা থেকে গত ১২ ফেব্রুয়ারি বিআইডাব্লিউটিএ এলাকায় জুয়ার বোর্ডে অভিযান চালিয়ে ৪১ জুয়াড়িকে গ্রেপ্তার এবং তাদের স্বীকারোক্তিতে জুয়াড়ি স্থানীয় জনৈক সাংবাদিক রাজু আহম্মেদের নাম আসা, ১১ মার্চ ফতুল্লার লঞ্চঘাট এলাকায় চোরাই জ্বালানি তেলের আস্তানায় পুলিশের অভিযানে বিপুল পরিমাণ চোরাই জ্বালানিসহ মূল হোতা ইকবাল হোসেন তিনজনকে গ্রেপ্তার, গত ২৭ মার্চ ফতুল্লার জামতলা এলাকায় জনৈক ভিকিসহ অন্যদের বিরুদ্ধে সিঙ্গাপুর প্রবাসী আজিজুল গাফফার খানের জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগে মামলা এবং ঘটনার সঙ্গে জড়িত এজহারভুক্ত আসামি জাহিদুলকে গ্রেপ্তার এবং গত ১ এপ্রিল রাতে ফতুল্লার পাগলা এলাকায় অবস্থিত মেরি অ্যান্ডারশনে ভাসমান জাহাজে পুলিশের অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ মাদকসহ ৬৮ জনকে গ্রেপ্তার পুরো জেলায় অপরাধীদের মনে ভয় ধরিয়ে দিয়েছে।

বিষেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/হৃদয়

Categories: নারায়ণগঞ্জের খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.