রবিবার ১২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ ২৬ মে, ২০১৯ রবিবার

চ্যাম্পিয়নস লিগ: কোয়ার্টারে মেসি-পগবার লড়াই

 

 

অনলাইন ডেস্ক: চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলো ছিল প্রত্যাবর্তনের ম্যাচ। যেখানে কোয়ার্টারে জায়গা পাওয়া আটটি দলের মধ্যে ছয়টি দলই প্রত্যাবর্তনের রূপকথার জন্ম দিয়ে জায়গা পেয়েছে। অপেক্ষা ছিল শেষ আটে কে কার মুখোমুখি হবে। অবশেষে সেই অপেক্ষাও শেষ হল। জানা গেলো কোয়ার্টারে কে কার মুখোমুখি হচ্ছে।

শুক্রবার সুইজারল্যান্ডের নিওনে ঠিক হয়ে গেলো কোয়ার্টারের লাইনআপ। ড্র শেষে হাইভোল্টেজ ম্যাচ হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে বার্সেলোনা-ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ম্যাচটি।

২০০৭/০৮ মৌসুমের সেমিফাইনালের পর এই প্রথম চ্যাম্পিয়নস লিগের দুই লেগের কোনো নকআউট ম্যাচে দেখা হচ্ছে বার্সেলোনা ও ইউনাইটেডের। সেবার পল স্কোলসের একমাত্র গোলে ফাইনালে গিয়েছিল ইউনাইটেড। আর ২০০৯ ও ২০১১ সালের দুটি ফাইনালে লিওনেল মেসির গোলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল কাতালানরা। দুই লেগের নকআউট পর্বে দুই দলের প্রথম দেখাতেও জয়ী দলের নাম অবশ্য ইউনাইটেডই (১৯৮৩-৮৪ মৌসুম)।

স্পেনের ক্লাব অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের হোম ভেন্যু ওয়ান্দা মেট্রোপলিটনে ১ জুন টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। কোয়ার্টারের ম্যাচগুলো হবে ৯-১০ এপ্রিল এবং ১৬-১৭ এপ্রিল।

রোনালদোর জুভেন্টাস সাক্ষাত করবে আয়াক্সের। একসময়ের ইউরোপীয় ফুটবলের পরাশক্তি আয়াক্স, যাদের কাছে হেরে শেষ ষোলো থেকেই বিদায় নিয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রিয়াল। ১৯৯৬ সালের ফাইনালে ‘তুরিনের বুড়ি’দের কাছে হেরে গিয়েছিল আয়াক্স। সেবার পেনাল্টি শ্যুট আউটে জয়ের মালা গলায় পড়েছিল সিরি আ’র চ্যাম্পিয়নরা।

তবে জুভদের হারিয়ে দেওয়ার ইতিহাসও আছে আয়াক্সের। ১৯৭৩ সালে সেসময়ের ইউরোপিয়ান কাপের ফাইনালে ১-০ গোলে জয় পেয়েছিল ডাচ জায়ান্টরা। তবে আয়াক্সের সঙ্গে সর্বশেষ ১০ সাক্ষাতে অপরাজিত জুভেন্টাস।

সালাহ’র লিভারপুলের মুখোমুখি হবে পোর্তো। ইংলিশ এ ক্লাবের বিপক্ষে দুই লেগের সর্বশেষ পাঁচটি ম্যাচেই হেরেছে পোর্তো। ২০০৩/০৪ সালে হোসে মরিনহোর অধীনে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে জয়ের পর আর কখনো ইংলিশ দলের বিপক্ষে দুই লেগের ম্যাচ জেতেনি। এই পোর্তোকেই গতবার শেষ ষোলোতে হারিয়ে কোয়ার্টারে উঠেছিল লিভারপুল।

হ্যারিকেনের টটেনহাম লড়াইয়ে নামবে আগুয়েরোর ম্যানচেস্টার সিটির। এ ম্যাচটি টুর্নামেন্টের একমাত্র ‘অল-ইংলিশ’ কোয়ার্টার ফাইনাল হিসেবে রূপ নিয়েছে। ‘অল ইংলিশ’ কোয়ার্টার ফাইনালে সিটি অবশ্যই এগিয়ে। লিগের শীর্ষে থাকা দলটি টটেনহামের বিপক্ষে কদিন আগেই জয় পেয়েছে। কিন্তু ইতিহাস সিটির পক্ষে নেই। এর আগে নকআউট পর্বে দুবার ইংলিশ প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলেছে দলটি। চেলসি (১৯৭০-৭১) ও লিভারপুলের (২০১৭-১৮) বিপক্ষে দুবারই হেরেছে তারা।

কোয়ার্টার ফাইনালে ম্যানসিটি/লিভারপুল যেই জিতুন তারা সেমিফাইনালে প্রতিপক্ষ হিসেবে পাবে জুভেন্টাস কিংবা আয়াক্সকে। অন্যদিকে বার্সেলোনা কিংবা ম্যানইউ যে-ই জিতুক সেমিফাইনালে তারা পাবে লিভারপুল কিংবা পোর্তকে।

দেখে নেব কোয়ার্টারের লাইনআপ
আয়াক্স বনাম জুভেন্টাস
লিভারপুল বনাম পোর্তো
টটেনহাম বনাম ম্যানচেস্টার সিটি
বার্সেলোনা বনাম ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড

 

 

বিষেরবাঁশী.কম/ডেস্ক/নিঃতঃ

Categories: খেলাধূলা

Leave A Reply

Your email address will not be published.