বৃহস্পতিবার ৭ ভাদ্র, ১৪২৬ ২২ আগস্ট, ২০১৯ বৃহস্পতিবার

দেশের ভবিষ্যত প্রধানমন্ত্রী

বিষেরবাঁশী ডেস্ক: ২০০৫ সালে এটিএন বাংলা’র বার্তা সম্পাদক নঈম নিজাম (সম্পাদক বাংলাদেশ প্রতিদিন) ভাই বললেন-দর্পণ সজীব ওয়াজেদ জয়ের সাক্ষাতকার নিতে পারবি? বলালম, চেষ্টা করে দেখি। চেষ্টা চালাতে গিয়ে সফল হলাম। সেসময়ে সজীব ওয়াজেদ জয়ের সঙ্গে মাঝেমাঝে টেলিফোনে আমার কথা হতো। তাঁর বাসায় গ্লোবকাষ্টের ডিস লাগিয়ে দিয়েছিলাম এটিএন বাংলা টিভির সম্প্রচার দেখার জন্য। যাই হোক-সজীব ওয়াজেদ জয় সময় দিলেন। আমি আব্দুল্লাহ আল লিটন (যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ নেতা-বর্তমানে দেশে থাকেন) ওয়াশিংটন ডিসিতে গেলাম-যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের তৎকালীন সভাপতি অধ্যাপক খালিদ হাসানের বাড়িতে। সাক্ষাতকার নেয়ার পর সজীব ওয়াজেদ জয় জানালেন টিভিতে দেয়া এটা তাঁর প্রথম সাক্ষাতকার। জেনে ভাল লাগল আমার। আমি তাঁকে আমার লেখা ছড়ার বই-ঠাট্টা উপহার দিলাম । বইয়ে লিখে দিলাম-বাংলাদেশের ভবিষ্যত প্রধানমন্ত্রী সজীব ওয়াজেদ জয়কে শুভেচ্ছা।
লেখাটা পাঠ করে সজীব ওয়াজেদ জয় হাসলেন এবং আমার কাছে জানতে চাইলেন এটা কেন লিখলাম। আমি বললাম-সময় নেতৃত্ব সৃষ্টি করে। এ কারণে আপনি একদিন প্রধানমন্ত্রী হবেন সময়ের দাবিতে। সেদিন বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা করবেন-এই অনুরোধ আগাম করে রাখছি। সজীব ওয়াজেদ জয় সেদিন আমার মন্তব্যের কোন জবাব দেননি। মৃদু হেসেছেন মাত্র। কিন্তু আমার বিশ্বাস তিনি একদিন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হবেন। তখন আমি বলব-আমি তো এ কথা ২০০৫ সালেই বলেছিলাম। (জয়ের সাক্ষাতকারের সিডিটা পরবর্তীতে আমার কাছ থেকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পৌঁছে দিয়েছিলেন এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের চেয়ারম্যান নিজাম চৌধুরী)

সুত্র: দর্পন কবির এর ফেইচবুক ওয়াল থেকে নেয়া

বিষেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/হৃদয়

Categories: জাতীয়,সারাদেশ

Leave A Reply

Your email address will not be published.