সোমবার ৩ পৌষ, ১৪২৫ ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ সোমবার

ইতিহাস সৃষ্টি করে টাইগারদের মধুর প্রতিশোধ

অনলাইন ডেস্ক: চলতি বছর নিজেদের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্টে ধবল ধোলাই করেছিল বাংলাদেশকে। দুই ম্যাচ টেস্টে বাংলাদেশকে দাঁড়াতেই দেয়নি। এবার টাইগাররা নিজেদের মাটিতে ধবল ধোলাই করে মধুর প্রতিশোধ নিল। প্রথম টেস্টে ৬৪ রানে জয়ের পর আজ রোববার মিরপুরে দ্বিতীয় টেস্টে ইনিংস ও ১৮৪ রানের ব্যবধানে হারিয়ে সফরকারীদের ধবল ধোলাই করে বাংলাদেশ। টাইগারদের টেস্ট ইতিহাসে এটাই সবচেয়ে বড় জয়।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের দ্বিতীয় ইনিংস, ২১৩/১০ (ফলোঅন)

উইন্ডিজ সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে টাইগারদের কাছে পাত্তাই পায়নি সফরকারীরা। মিরপুরে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের ৫০৮ রানের জবাবে খেলতে নেমে ১১১ রানে সবকটি উইকেট হারিয়ে ফলোঅনে পড়ে ব্রায়ান লারার উত্তরসূরিরা। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমেও সাকিব-মিরাজের ঘূর্ণিতে খাবি খেয়েছেন উইন্ডিজ ব্যাটসম্যানরা।

দ্বিতীয় ইনিংসেও মিরাজের স্পিনের কোনো জবাব ছিল না উইন্ডিজ ব্যাটসম্যানদের কাছে। মিরাজ এ ইনিংসেও নেন ৫ উইকেট। এ ছাড়া সাকিব ২, তাইজুল ২ ও নাঈম ১ উইকেট নেন। উইন্ডিজদের হয়ে সর্বোচ্চ ৯৩ রান আসে হেটমায়ারের ব্যাট থেকে। তিনি একাই লড়েছেন টাইগার বোলারদের বিরুদ্ধে। এ ছাড়া শাই হোপ ২২ ও কেমার রোচ করেন ৩৭ রান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম ইনিংস ১১১/১০

পাহাড়সম রানের চাপ নিয়ে দ্বিতীয় দিনের শেষ সেশনে মাঠে নেমে দিশেহারা দিন পার করেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা। আজ রোববারও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি। টাইগারদের স্পিনের যেন কোনো জবাব নেই তাদের কাছে। মিরাজ একাই সাত উইকেট নিয়ে লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছেন উইন্ডিজ ব্যাটং লাইনআপ।

৭৫ রানে পাঁচ উইকেট নিয়ে আজ ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৩৫ রান যোগ করে অলআউট হয়ে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৫০৮ রানের লিডে খেলতে নেমে প্রথম ইনিংসে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১১০ রান করে। এখনো পিছিয়ে আছে ৩৯৭ রানে। সর্বোচ্চ ৩৯ রান আসে হেটমায়ারের ব্যাট থেকে। ৩৭ রান করেন ডওরিচ। শাই হোপ (১০) ছাড়া দুই অঙ্কের মুখ দেখেননি আর কোনো ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ সাত উইকেট নেন মেহেদী হাসান মিরাজ। সাকিব আল হাসান নেন তিন উইকেট।

বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস, ৫০৮/১০

মিরপুরের পিচকে ব্যাটিং স্বর্গ বানিয়ে রানের পাহাড় গড়লেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। মাহমুদুল্লাহর ক্যারিয়ার সেরা সেঞ্চুরির সঙ্গে সাকিব, সাদমান ও লিটনের হাফসেঞ্চুরিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৫০৮ রানে থামে বাংলাদেশ। গতকালের ২৫৯ রানের সঙ্গে শনিবার দ্বিতীয় দিন আরও যোগ করেন ৩০৯ রান।

প্রথম ইনিংসের ১৩৯.৬ ওভারের (দ্বিতীয় দিন, দ্বিতীয় সেশন) সময় চেজের বল বাউন্ডারিতে পাঠিয়ে তিন অঙ্কের ঘর ছোঁয়ার উল্লাসে মেতে উঠেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। এর আগে ক্যারিয়ারে দুটি সেঞ্চুরি ছিল এ ডানহাতি ব্যাটসম্যানের। আজ হ্যাটট্রিক সেঞ্চুরি করেন তিনি। নিজের ব্যক্তিগত তৃতীয় শতক পূরণ করতে ২০৩ বল খরচ করতে হয় মাহমুদুল্লাহকে। অভিষিক্ত সাদমান ইসলাম ৭৬, অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ৮০ ও লিটন দাস করেন ৫৪ রান। এ ছাড়া মোহাম্মদ মিথুন ও মুমিনুল হক ২৯ রান করে সাজঘরে ফিরে যান।

তাইজুল ইসলাম ২৬, সৌম্য সরকার ১৯, মেহেদী মিরাজ ১৮ ও মুশফিকুর রহিম ১৪ রান করে আউটন হন। নাঈম হাসান সর্বনিম্ন ১২ রান করে অপরাজিত থাকেন। এদিন বাংলাদেশের সব ব্যাটসম্যানই দেখা পান দুই অঙ্কের। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে এটি ১৪তম বারের মতো ঘটে। বাংলাদেশের ইতিহাসে যা প্রথম। ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে সর্বোচ্চ দুই উইকেট করে নেন কেমার রোচ, ওয়ারিক্যান, দেবেন্দ্র বিশু ও ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট। এ ছাড়া শিরমন লুইস ও রোস্টন চেজ নেন একটি করে উইকেট।

 

বিষেরবাঁশী.কম/ডেস্ক/নিঃতঃ

Categories: খেলাধূলা

Leave A Reply

Your email address will not be published.