শনিবার ৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ ১৭ নভেম্বর, ২০১৮ শনিবার

অনিরাপদ খাদ্যে বাংলাদেশের বছরে ক্ষতি ৯ হাজার কোটি টাকা: বিশ্বব্যাংক

অনলাইন ডেস্ক: অনিরাপদ খাদ্যে বিশ্বে অর্থনৈতিক ক্ষতির পরিমাণ দিন দিন বাড়ছে। বিশ্বব্যাংকের তথ্য বলছে, এ কারণে নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলোকে উৎপাদন ক্ষমতা হারানো ও চিকিৎসা ব্যয়ের কারণে ১১ হাজার কোটি ডলার ব্যয় করতে হয়।
এর মধ্যে বাংলাদেশের মতো দেশে বছরে ক্ষতি হচ্ছে ১০০ কোটি ডলারের ওপরে। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা।
বিশ্বব্যাংকের ‘দ্য সেইফ ফুড ইমপারেটিভ’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। বুধবার প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়।
২০১৬ সালের তথ্যের ভিত্তিতে এ তালিকা প্রকাশ করেছে বিশ্বব্যাংক।
প্রতিবেদনে বলা হয়, অনিরাপদ খাদ্যের কারণে নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলোতে যে পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে, তার মধ্যে খাদ্যসংশ্লিষ্ট রোগের কারণে মানুষের উৎপাদনশীলতা কমায় ক্ষতির পরিমাণ ৯ হাজার ৫০০ কোটি ডলার। আর এসব রোগের চিকিৎসা ব্যয় ১ হাজার ৫০০ কোটি ডলার।
অথচ বিশ্বব্যাংক বলছে, এ অর্থের একটি বড় অংশ দিয়ে নিরাপদ খাদ্য বা খাদ্যের মান উন্নত করা যেতো। কিন্তু তা আমলে নেয়া হচ্ছে না।
প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, খাদ্যসংশ্লিষ্ট রোগের কারণে মানুষের উৎপাদনশীলতা কমায় প্রতি বছর সবচেয়ে বেশি আর্থিক ক্ষতি হয় চীনের। দেশটির ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৩ হাজার কোটি ডলার। আর্থিক ক্ষতির দিক থেকে দ্বিতীয় ভারত। দেশটির আর্থিক ক্ষতি প্রায় ১ হাজার ৬৫০ কোটি ডলার।
তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ইন্দোনেশিয়া, ক্ষতি ৭০০ কোটি ডলার। নাইজেরিয়ার (চতুর্থ) ক্ষতি ৬৭৫ কোটি ডলার। তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান দশম। ক্ষতি পরিমাণ প্রায় ১১০ কোটি ডলার। পকিস্তানে বছরে ক্ষতি ১২০ কোটি ডলার, দেশটির অবস্থান নবম।
বিশ্বব্যাংক বলছে, নিরাপদ খাদ্যসংক্রান্ত সমস্যা সমাধানে দেশগুলোকে কয়েকটি প্রতিরোধমূলক পদক্ষেপের নিতে হবে। এর মধ্য রয়েছে বড় বিনিয়োগ, এ সংক্রান্ত শক্তিশালী নিয়ন্ত্রক সংস্থা গঠন এবং খাদ্যাভাস পরিবর্তনে কাজ করা।

বিষেরবাঁশী.কম/ডেস্ক/নিঃতঃ

Categories: অর্থনীতি

Leave A Reply

Your email address will not be published.