রবিবার ৬ কার্তিক, ১৪২৫ ২১ অক্টোবর, ২০১৮ রবিবার

বন্দর গার্লস স্কুল এন্ড কলজে ও বন্দর কলোনী সরকারী প্রাথমকি বদ্যিালয় উদ্বোধন

বিশেরবাঁশী ডেস্ক: দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৫টি উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করলেন সেলিম ওসমান, বন্দর গালর্স স্কুল এন্ড কলেজ হবে না.গঞ্জে মডেল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্দর গালর্স স্কুল এন্ড কলেজের নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত দুটি ভবনের উদ্বোধন এবং সংসদ সদস্যের চাহিদা পত্রের মাধ্যমে সরকারী অর্থায়নে আরো দুটি ভবনের নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন করা হয়েছে। শনিবার ১৫ সেপ্টেম্বর দুপুর ১২টায় নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান এসব উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করেছেন। অপরদিকে বিকেল সাড়ে ৩ টায় বন্দর শাহী মসজিদ সংলগ্ন বন্দর কলোনী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সরকারী অর্থায়নে প্রায় দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে নবনির্মিত ৪ তলা ভবনের উদ্বোধন করেছেন এমপি সেলিম ওসমান।

বন্দর গালর্স স্কুল এন্ড কলেজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি বন্দর থানা এলাকায় একটি ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ। স্কুলের বর্তমান পরিচালনা কমিটির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব তহবিল থেকে নির্মিত ৫তলা ভবন দুটি নির্মানে ব্যয় হয়েছে প্রায় সাড়ে ৩কোটি টাকা। অকল্পনীয় এই উন্নয়ন কাজের জন্য এমপি সেলিম ওসমান স্কুলের পরিচালনা কমিটির নেতৃবৃন্দদের কর্মকান্ডের প্রশংসা সহ তাদেরকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। পাশাপাশি বিপুল পরিমানের এই স্কুলের তহবিল জমা হওয়ার পেছনে তিনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিতে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকদের কৃতিত্ব প্রদান অভিভাবকদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন এবং শিক্ষার্থীদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত হওয়ার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাও পরামর্শ প্রদান করেন।এখানে উল্লেখ্য যে সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের সুপারিশের মাধ্যমে বর্তমান পরিচালনা কমিটির অনুমোদন প্রাপ্ত হয়ে ছিল।

অপরদিকে ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন বাকি দুটি ভবনের মধ্যে রয়েছে ২ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে আইসিটি কলেজ ভবন এবং ৭৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ৬ তলা ফাউন্ডেশনে একতলা স্কুল একাডেমী ভবন। যা সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের চাহিদা পত্রের পরিপ্রেক্ষিতে সরকারী বরাদ্দের মাধ্যমে নতুন ভবন দুটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। উক্ত উন্নয়ন কাজ গুলো সম্পন্ন হলে বন্দর গালর্স স্কুল এন্ড কলেজ নারায়ণগঞ্জে একটি মডেল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিণত হবে। বন্দর গালর্স স্কুল এন্ড কলেজের ভবন গুলোর উদ্বোধন শেষে আলোচনা সভায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা কমিটির নেতৃবৃন্দ সহ সকল শিক্ষার্থীরা স্কুলটিকে সরকারীকরনের জন্য জোরালো দাবী রাখেন। সেই সাথে স্কুলে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের মধ্যে বেশ কয়েকজন বিশেষায়িত(প্রতিব›দ্ধী) শিক্ষার্থীর ব্যাপারে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সংসদ সদস্যের কাছে প্রস্তাব রাখেন নেতৃবৃন্দরা।

পরিপ্রেক্ষিতে সেলিম ওসমান বলেন, ইতোমধ্যে স্কুলটি সরকারীকরনের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চাহিদাপত্র প্রেরণ করা হয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি সরকারী করার জন্য আমি শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত চেষ্টা করে যাবো। আশা করছি সকলের দাবী অবশ্যই পূরন হবে। আর স্কুলের বিশেষায়িত (প্রতিব›দ্ধী) শিক্ষার্থীর যাবতীয় তথ্য সহ তালিকা প্রস্তুত করে স্কুল কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে লিখিত আকারে প্রস্তাবনা পেলে তিনি তাদের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। শিক্ষার্থী ও কমিটির নেতৃবৃন্দদের দাবী পূরনের পাশাপাশি স্কুল পরিচালনা কমিটির কাছেও পাল্টা দুটি দাবী রেখেছেন এমপি সেলিম ওসমান।

পরিচালনা কমিটির কাছে দাবী রেখে তিনি বলেন, বন্দর গালর্স স্কুল এন্ড কলেজে আমি এতো সংখ্যক ছাত্রী পেয়েছি যারা লেখাপড়ার পাশাপাশি সংঙ্গীত সহ সাংস্কৃতিক নানা বিষয়ে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখেছে। তা অন্য কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আমি পাই নাই। লেখাপড়া করে মানুষ শুধু ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ারই হয় না। লেখাপড়া করে মানুষ একজন দেশে প্রতিষ্ঠিত সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব হতে পারে তার উৎকৃষ্ট উদাহরন এই স্কুলের শিক্ষার্থীরা। এই স্কুলে যারা লেখাপড়ার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক চর্চার সাথে জড়িত রয়েছে তাদের নিয়ে নতুন ভবনে একটি ক্লাস চালু করতে এবং যেহেতু এটি একটি গালর্স স্কুল তাই স্কুলের ছাত্রীদের সুস্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে স্কুলের ভেতরে একটি কক্ষে স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র চালু করার জন্য কমিটির নেতৃবৃন্দের কাছে বিশেষ ভাবে অনুরোধ করবো। যেখানে মহিলা চিকিৎসক ধারা সপ্তাহে ১ অথবা ২ দিন ছাত্রীদের স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করা হবে। এক্ষেত্রে প্রয়োজনে আমি ব্যক্তিগত ভাবে আর্থিক সহযোগীতা করবো।

এদিকে বিকেলে বন্দর কলোনী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সেলিম ওসমান সভায় উপস্থিত হাজারো ব্যক্তি সহ সমস্ত এলাকাবাসীকে স্বাবলম্বী হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। এক্ষেত্রে যদি কারো কোন প্রকার পরামর্শের প্রয়োজন হয় তাহলে তিনি তাদেরকে সর্বাত্মক সহযোগীতা করবেন। সেই সাথে তিনি নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত শামসুজ্জোহা এমবি ইউনিয়ন স্কুলটিকে সম্পূর্ন কৃষি বিদ্যালয়ে রূপান্তরের মাধ্যমে কৃষিতে উৎসাহী ব্যক্তিদের বিশেষ প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করবেন। এছাড়াও তিনি বন্দর কলোনী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্নে অবস্থিত শিকদার আব্দুল মালেক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জলাবদ্ধতার সমস্যা নিরসনের লক্ষ্যে আগামীকাল রোববারের মধ্যে স্কুল পরিচালনা কমিটিকে মাঠে বালি ভরাটের জন্য প্রস্তাবনা প্রেরন করতে অনুরোধ করেন। লিখিত প্রস্তাবনা পেলে তিনি দ্রুত স্কুলটিতে জলাবদ্ধতার সমস্যা সমাধানে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহন করবেন।

বন্দর গালর্স স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা কমিটির সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব ও বন্দর কলোনী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবুল জাহের এর সভাপতিত্বে উদ্বোধন অনুষ্ঠান দুটিতে আরো উপস্থিত ছিলেন, বন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুল, বন্দর উপজেলার নির্বার্হী কর্মকর্তা পিন্টু বেপারী, বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) শাহীন মন্ডল, মহানগর জাতীয় পার্টির আহবায়ক সানা উল্লাহ সানু, জাপা নেতা গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, সিটি কর্পোরেশনের ২৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহম্মেদ দুলাল প্রধান, ২২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সুলতান আহম্মেদ, ২১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হান্নান সরকার, ২০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গোলাম নবী মুরাদ, মহানগর সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসনাত রহমান বিন্দু, বন্দর থানা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবুর রহমান কমল সহ গন্যমান্য ব্যক্তি ও সকল রাজনৈতিক দলের দলের স্থানীয় নেতৃবৃন্দরা।

বিশেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/ইলিয়াছ

Categories: শিক্ষা

Leave A Reply

Your email address will not be published.