শুক্রবার ২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ ১৬ নভেম্বর, ২০১৮ শুক্রবার

এসি রবিউলের স্ত্রী এখন জাবির প্রশাসনিক কর্মকর্তা

বিষেরবাঁশী ডেস্ক: গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলায় নিহত ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) রবিউল করিমের স্ত্রী উম্মে সালমাকে প্রশাসনিক কর্মকর্তা নিয়োগ দিয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ অফিস থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

গত ১ জুলাই পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) রবিউল করিমের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তার স্ত্রীকে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ প্রদান করা হবে বলে বিশ্ববিদ্যালয় জনসংযোগ অফিস থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

এতে আরও বলা হয়, সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত রীতি অনুসরণ করে রবিউল করিমের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এদিকে বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার আবু বকর সিদ্দিক স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে বলা হয়, মিসেস উম্মে সালমাকে (স্বামী মৃত রবিউল করিম) বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার অফিসের উচ্চমান সহকারী পদে মাস্টাররোল ভিত্তিতে (কাজ করলে মুজুরি) দৈনিক ৫২৫ টাকা মজুরিতে ৯০ দিনের জন্য নিয়োগ দেয়া হয়। এই সিদ্ধান্ত জানাজানি হলে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে প্রশাসন। পরে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে সালমাকে শুক্রবার নতুন পদের নিয়োগপত্র দেওয়া হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) রবিউল করিমের স্ত্রী উম্মে সালমা স্নাতকোত্তর শ্রেণিতে প্রথম শ্রেণি, স্নাতকে দ্বিতীয় শ্রেণি এবং এসএসসি ও এইসএসসিতে প্রথম বিভাগ রয়েছে।

এ বিষয়ে নিহত রবিউল করিমের ছোট ভাই শামসুজ্জামান শামস বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচারিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী তিনি প্রথম শ্রেণির পদের জন্য আবেদনও করেছিলেন এবং মৌখিক পরীক্ষায়ও অংশ নিয়েছিলেন। কিন্তু প্রথমে তাকে তৃতীয় শ্রেণীর অস্থায়ী ভিত্তিতে চাকরি দিলেও পরে বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন পুনর্বিবেচনা করায় তাদের ধন্যবাদ জানাই।’

উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেন, ‘অভিজ্ঞতা ছাড়া সরাসরি প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে নিয়োগ দেয়ার নিয়ম না থাকায় তাকে উচ্চমান সহকারী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল। পরে রবিউলের প্রতি সম্মান দেখিয়ে রেজিস্ট্রার অফিসের শিক্ষা শাখায় তাকে অ্যাডহকভিত্তিতে চাকরি দেয়া হয়েছে।’গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলায় নিহত ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) রবিউল করিমের স্ত্রী উম্মে সালমাকে প্রশাসনিক কর্মকর্তা নিয়োগ দিয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ অফিস থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। গত ১ জুলাই পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) রবিউল করিমের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তার স্ত্রীকে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ প্রদান করা হবে বলে বিশ্ববিদ্যালয় জনসংযোগ অফিস থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। এতে আরও বলা হয়, সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত রীতি অনুসরণ করে রবিউল করিমের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এদিকে বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার আবু বকর সিদ্দিক স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে বলা হয়, মিসেস উম্মে সালমাকে (স্বামী মৃত রবিউল করিম) বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার অফিসের উচ্চমান সহকারী পদে মাস্টাররোল ভিত্তিতে (কাজ করলে মুজুরি) দৈনিক ৫২৫ টাকা মজুরিতে ৯০ দিনের জন্য নিয়োগ দেয়া হয়। এই সিদ্ধান্ত জানাজানি হলে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে প্রশাসন। পরে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে সালমাকে শুক্রবার নতুন পদের নিয়োগপত্র দেওয়া হয়। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) রবিউল করিমের স্ত্রী উম্মে সালমা স্নাতকোত্তর শ্রেণিতে প্রথম শ্রেণি, স্নাতকে দ্বিতীয় শ্রেণি এবং এসএসসি ও এইসএসসিতে প্রথম বিভাগ রয়েছে। এ বিষয়ে নিহত রবিউল করিমের ছোট ভাই শামসুজ্জামান শামস বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচারিত বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী তিনি প্রথম শ্রেণির পদের জন্য আবেদনও করেছিলেন এবং মৌখিক পরীক্ষায়ও অংশ নিয়েছিলেন। কিন্তু প্রথমে তাকে তৃতীয় শ্রেণীর অস্থায়ী ভিত্তিতে চাকরি দিলেও পরে বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন পুনর্বিবেচনা করায় তাদের ধন্যবাদ জানাই।’ উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেন, ‘অভিজ্ঞতা ছাড়া সরাসরি প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে নিয়োগ দেয়ার নিয়ম না থাকায় তাকে উচ্চমান সহকারী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল। পরে রবিউলের প্রতি সম্মান দেখিয়ে রেজিস্ট্রার অফিসের শিক্ষা শাখায় তাকে অ্যাডহকভিত্তিতে চাকরি দেয়া হয়েছে।’

বিষেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/হৃদয়

Categories: শিক্ষা,সারাদেশ

Leave A Reply

Your email address will not be published.