বুধবার ৪ আশ্বিন, ১৪২৫ ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বুধবার

সোনারগাঁ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ অনিয়মই যেখানে নিয়ম!

বিশেরবাঁশী ডেস্ক: সোনারগাঁ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়মে পরিনত হয়েছে। এই কলেজে শিক্ষা পরিনত হয়েছে ব্যবসায়। টাকা ছাড়া কিছুই হয়না সোনারগাঁ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে। যত মেধাবী, গরিব, পঙ্গু ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হউক টাকা দিতেই হবে। টাকার বিষয়ে কোন ছাড় নেই। কলেজের টাকা দিতে না পেরে বন্ধ হয়ে গেছে শত শত ছেলে- মেয়ের লেখাপড়া। অন্যদিকে, সোনারগাঁ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ আশরাফুজ্জামান অপু, তার স্ত্রী গার্হস্থ্য অর্থনীতি বিভাগের চেয়ারম্যান খন্দকার দিল অাফরোজ, কলেজের অফিস সহকারী জাহাঙ্গীর ও জুয়েল দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে আত্নসাৎ করেছেন কলেজের কয়েক কোটি টাকা।

জানা গেছে, সোনারগাঁয়ের সাবেক এমএলএ সাজেদ আলী মোক্তার তৎকালিন সময়ে সোনারগাঁয়ে কোন কলেজ না থাকায় শিক্ষাক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়া ছেলে মেয়েদের কথা চিন্তা করে সোনারগাঁ কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি কখনো সোনারগাঁ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে লাভের আশা তো করেননি উল্টো কলেজ প্রতিষ্ঠার পর নিজেই সকল খরচ চালিয়েছেন। কিন্তু বর্তমান অধ্যক্ষ ও তার স্ত্রী এবং অফিস সহকারী জাহাঙ্গীর ও জুয়েল গড়েছেন টাকার পাহাড়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি ও ফরম ফিলাপে শিক্ষা মন্ত্রনালয় ও হাইকোর্ট বিভাগের আদেশ অমান্য করে টাকা আদায় করছে। ছাত্র-ছাত্রীদের টাকা জমা করা হয় সোনালী ব্যাংকে সরকারি টাকা আর মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকে দুর্নীতি ও অনিয়মের টাকা জমা রাখা হয়। অফিস সহকারীরা নগদ ১ থেকে ২ হাজার টাকা রেখে বাকিটা রিসিটে লিখেন আরো জানা গেছে, বিভিন্ন পরিক্ষায় ডিউটি দিতে আসা প্রথম শ্রেনীর হল পরিদর্শকদদের সাথে খারাপ আচরন ও তাদের দায়িত্বে বাধা দেন অধ্যক্ষের স্ত্রী খন্দকার দিল আফরোজা।

সোনারগাঁ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের এক ছাত্রী নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানায়, আমি পঞ্চম শ্রেনীতে ও অষ্টম শ্রেনীতে বৃত্তি পেয়েছি। এসএসসি ও এইচএসসিতে জিপিএ ৫ পেয়েছি। আমি ইতিপূর্বে যে কলেজ ও স্কুলে লেখাপড়া করেছি কোন খরচ নেয়নি। কিন্তু সোনারগাঁ কলেজ মেধা ও মেধার বিকাশে কোন কাজ না করে শুধু অর্থ আদায়ে ব্যস্ত। যদি কোন ছাত্র-ছাত্রী কলেজের টাকা কম দেয় তাহলে ব্যবহারিক পরিক্ষায় নাম্বার কমিয়ে দেয়।

সোনারগাঁয়ের সাবেক এমএলএ মরহুম সাজেদ আলী মোক্তারের ছেলে মোগরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরিফ মাসুদ বাবু জানায়, আমার বাবা বা আমরা কখনোই কলেজ থেকে কোন সুবিধা নেইনি। বরং আমার মরহুম পিতার মত সবসময় চাই মেধাবি দরিদ্র ও অসহায় ছেলে- মেয়েরা বিনামূল্যে বা সামান্য টাকার বিনিময়ে উপযুক্ত শিক্ষা পায়। এ ব্যাপারে সোনারগাঁ বিশ্ব বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ আশরাফুজ্জামান অপুকে তার মোবাইলে ফোন করলে তিনি জানায় অভিযোগ গুলো সঠিক নয়।

বিশেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/ইলিয়াছ

Categories: নারায়ণগঞ্জের খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.