শনিবার ৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ ১৭ নভেম্বর, ২০১৮ শনিবার

খালাস চেয়ে খালেদা জিয়ার আপিল শুনানি ৩ জুলাই

বিশেরবাঁশী ডেস্ক: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজার বিরুদ্ধে আপিল শুনানির জন্য আগামী ৩ জুলাই দিন ধার্য করেছেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের পেপার বুক সরবরাহের জন্যও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ২৭ জুন বুধবার, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, এ জে মোহাম্মদ আলীও অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। অপরদিকে দুদকের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান।

পরে আদালত থেকে বেরিয়ে খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘আপিল বিভাগ হাইকোর্ট বিভাগকে এ মামলার আপিল নিষ্পত্তি করতে ৩১ জুলাই দিন নির্ধারণ করে দিয়েছেন। কিন্তু আমরা আপিল বিভাগের রায়ের কপি এক মাস পর পেয়েছি। সেখানে একমাস চলে গেছে। দুই মাস জামিনের লিভ টু আপিলের শুনানি করতে সময় চলে গেছে। এজন্য আমরা আদালতের কাছে সময় প্রার্থনা করেছি। দুই মাস চলে গেলেও খালেদা জিয়ার জামিন আছে কি না, সেটি আমরা জানতে পারি নাই।’ মওদুদ আহমদ আরও বলেন, ‘এ মামলার এত বড় পেপার বুক অথচ আমরা পেপার বুক এখনো হাতে পাই নাই। আদালত বলেছেন আপিল বিভাগের নির্দেশ মানতে আমরা বাধ্য।’

খালেদার আরেক আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘এটি একটি রাজনৈতিক মামলা। দুর্নীতি দমন কমিশন অন্যান্য মামলা শুনানির জন্য ব্যস্ততা কম দেখালেও খালেদা জিয়ার মামলার আপিল শুনানি করতে ব্যস্ত।’ এর আগে ২৬ জুন, মঙ্গলবার কুমিল্লার হত্যা ও নাশকতার দুই মামলায় খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন আদেশ বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। গত ২০ মে নড়াইলের একটি মামলাসহ ওই দুই মামলায় হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন খালেদা জিয়া। ২৭ মে এই দুই মামলার ওপর শুনানি হয়। ২৮ মে কুমিল্লার দুই মামলায় খালেদাকে ছয় মাসের জামিন দেন হাইকোর্টের বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের বেঞ্চ। সে আদেশ স্থগিত চেয়ে আবেদন করেন রাষ্ট্রপক্ষ।

২৯ মে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের শুনানি শেষে জামিন স্থগিত করে চেম্বার আদালত। পরবর্তী শুনানির জন্য ৩১ মে দিন নির্ধারণ করেন এবং আবেদনটি শুনানির জন্য আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়ে দেন। গত ৩১ মে কুমিল্লার দুই মামলায় শুনানির পর আপিল বিভাগ খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন স্থগিত রেখে রাষ্ট্রপক্ষকে লিভ টু আপিল করতে আদেশ দেন। ২০১৫ সালের শুরুর দিকে ২০ দলীয় সরকারবিরোধী আন্দোলনের সময় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চৌদ্দগ্রামে পেট্রোল বোমায় আইকন পরিবহনের একটি বাসের কয়েকজন যাত্রীর অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যু হয়। আহত হন আরও ২০ জন। সেসব ঘটনায় একটি হত্যা ও একটি নাশকতার মামলা করে পুলিশ। উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় পাঁচ বছরের সাজা দেওয়ার পর গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরানো কারাগারে রয়েছেন খালেদা জিয়া।

বিশেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/ইলিয়াছ

Categories: রাজনীতি,সারাদেশ

Leave A Reply

Your email address will not be published.