রবিবার ৮ আশ্বিন, ১৪২৫ ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রবিবার

বিশ্বকাপ মাঠে লাল-সবুজের পতাকা গায়ে ফতুল্লার সেই টুটুল

বিশেরবাঁশী ডেস্ক: ব্রাজিলের ফ্যান কার্ড নিয়ে রাশিয়া গিয়েছেন ফতুল্লার আলোচিত ব্রাজিল বাড়ির জয়নাল আবেদীন টুটুল। তিনি ১৭ জুন বাংলাদেশ সময় রাত ১২ টার দিকে রাশিয়ার রোস্তভ অন ডন স্টেডিয়ামে বসে ব্রাজিল-সুইজারল্যান্ডের মধ্যকার খেলাটি উপভোগ করেন। স্টেডিয়ামে ঢোকার আগে তিনি এর বাইরে মেতেছিলেন বিভিন্ন দেশ থেকে আগত ব্রাজিলের ফ্যানদের সাথে, উচ্ছ্বাসে। তুলেছেন অসংখ্য ছবি। আর পুরো সময়টা জুড়েই তিনি বহন করেছেন বাংলাদেশের লাল সবুজের পতাকা।

 

বিশ্বকাপ মাঠে প্রথমবারের মতো কোনো বাংলাদেশে নিজ দেশের পতাকা নিয়ে খেলা উপভোগ সম্ভবত এটিই। অনেক ব্রাজিলিয়ানরাই বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটিকে চিনতেন না। সম্প্রতি প্রথম আলোর একটি কলামেও এমনই তথ্য দিয়েছিলেন। জানিয়েছিলেন তাঁরা বাংলাদেশ বলতে ইন্ডিয়াকেই বুঝেন! তবে সেই তাঁদের নাকের ডগার সামনে সেই বাংলাদেশের পতাকা গায়ে জড়িয়ে খেলা দেখেছেন আলোচিত ব্রাজিল দলের পাগলা ফ্যান টুটুল। শুধু খেলা দেখেছেন বললে ভুলই হবে। বরং বাংলাদেশের পতাকা নিয়ে অনেকেই এদিন তাঁর সাথে ছবিও তুলেছেন। শুনেছেন বাংলাদেশ সম্পর্কে ব্রাজিল ভক্তদের উন্মাদনার কথাও।

সুইজারল্যান্ডের বিপরীতে ব্রাজিলের খেলা শুরু আগ মুহুর্তে রোস্তভ অন ডন স্টেডিয়াম থেকে জয়নাল আবেদিন টুটুল নারায়ণগঞ্জ টুডে’কে জানিয়েছিলেন, খুবই আনন্দঘন একটি সময় কাটছে। এই অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করে বোঝানো যাবে না। তবে বেশি ভালো লাগছে আমি আমার দেশের লাল-সবুজের পতাকা এই মাঠে বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরতে পেরেছি। প্রিয় দল ব্রাজিল আর এই দেলের ফ্যান কার্ড নিয়ে নেইমার-কুতিনহো-জেসুসদের খেলা এত কাছ থেকে দেখতে পাবেন, সেটি কখনো স্বপ্নেও ভাবেননি। তবে তাঁর জীবনে সব থেকে বড় স্বপ্নই ছিলো এতটা কাছ থেকে প্রিয় দলের খেলা দেখার। শেষত সেই ইচ্ছেটাও ব্রাজিলের এই পাগলা ফ্যানের পূরণ হয়েছে।

টুটুল বলেন, এই জীবনে সব থেকে বড় ইচ্ছেই ছিলো ব্রাজিলের খেলা কাছ থেকে দেখার। আমি দেখেছি। সত্যি এ আনন্দ ভাষায় প্রকাশ করার নয়। রাশিয়াতে ব্রাজিলের অসংখ্য ফ্যান আমার সাথে এসে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন, সেলফি তুলেছেন। বাংলাদেশের পতাকা নিয়ে অনেকেই অত্যন্ত আগ্রহ নিয়ে ছবি তুলেন আমার সাথে। পুরো খেলাজুড়েই আমার দেশের পতাকা আমার গায়েই জড়ানো ছিলো। তিনি বলেন, প্রিয়দল ব্রাজিলের খেলা দেখার জন্য রাশিয়ায় যাওয়ার ইচ্ছাপোষণ করলে সব ধরনের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত। আমি তাঁর কাছে কৃতজ্ঞ।

প্রসঙ্গত, বুধবার (১৩ জুন) রাশিয়ার উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করেন। এদিন তাঁকে তাঁর ভাই ও বন্ধুরা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে এগিয়ে দিয়ে আসেন। আজ রাতেই তিনি রাশিয়া থেকে বিমানে চড়বে দেশে পৌঁছাবেন মঙ্গলবার (১৯ জুন)। ২২ তারিখে টুটুলের বাড়িতে যাবেন বাংলাদেশে অবস্থানরত ব্রাজিলের প্রতিনিধি দল। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার লালপুর এলাকায় জয়নাল আবেদীন টুটুলের মালিকানাধীন বাড়িটি দেশজুড়ে ফুটবলভক্তদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলে। ৭ তলা বাড়িটির পুরোটাই সুশোভিত হয়েছে ব্রাজিলের পতাকার রঙে। বাড়ির ছাদে উড়ছে বড় বড় পতাকা। বাড়ির প্রধান ফটকে লেখা রয়েছে ‘ব্রাজিল-বাড়ি’।

বাড়ির ভেতরটাও ব্রাজিলের পতাকার রঙে রাঙানো। ড্রইং রুমে রয়েছে ব্রাজিলের বিভিন্ন তৈজসপত্র ও স্যুভেনির। ব্রাজিলের কিংবদন্তি খেলোয়াড়দের পোস্টার টাঙানো বাড়ির দেয়ালজুড়ে। রয়েছে ব্রাজিলের পতাকার বাঁধাই করা ফটোফ্রেমও। নোয়াখালীর ছেলে টুটুল একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করেন। ফুটবল খেলার প্রতি ভালোবাসা এবং ব্রাজিল দলের প্রতি একনিষ্ঠ সমর্থন থেকেই নিজের বাড়ির নাম রেখেছেন ব্রাজিল বাড়ি। ব্রাজিল বাড়ির মালিক জয়নাল আবেদীন টুটুল বলেন, ফুটবল খেলার প্রতি যেমন ভালোলাগা রয়েছে তেমনি ব্রাজিল দলের প্রতি ভালোবাসা রয়েছে। সেই প্রিয়দলের বিশ্বকাপ ফুটবল খেলা দেখতে রাশিয়ায় যেতে পারছি বলে অনেক অনেক আনন্দিত।

বিশেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/ইলিয়াছ

Categories: খেলাধূলা

Leave A Reply

Your email address will not be published.