রবিবার ৮ আশ্বিন, ১৪২৫ ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রবিবার

রাশিয়া বিশ্বকাপে যত প্রযুক্তি

বিশেরবাঁশী ডেস্ক: প্রযুক্তি ও নতুনত্বের দিক থেকে রাশিয়া বিশ্বকাপ আগের সব বিশ্বকাপকে ছাপিয়ে যাবে। এবারের বিশ্বকাপে ভিএআর (ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি) পদ্ধতিসহ থাকছে আরও কিছু চমকে যাওয়ার মতো প্রযুক্তি। বাংলানিউজের পাঠকদের জন্য রাশিয়া বিশ্বকাপে ব্যবহার হতে যাওয়া প্রযুক্তিগত দিকগুলো তুলে ধরা হলো:

ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (ভিএআর)
ফিফা আয়োজিত পদ্ধতিটি প্রথম প্রয়োগ হয় ২০১৬ সালের ক্লাব বিশ্বকাপে। পরের বছর অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ও কনফেডারেশনস কাপেও প্রয়োগ হয়। এবার তা দেখা যাবে রাশিয়া বিশ্বকাপেও। এতে ফুটবলে অনেক স্বচ্ছতা আসবে বলেই আশা করা হচ্ছে। ভিডিও রেফারি বা ভিএআর প্রযুক্তিতে মূলত চারটি বিষয় থাকবে। গোল হয়েছে কি হয়নি, পেনাল্টির সিদ্ধান্ত যাচাই, সরাসরি লাল কার্ডের সিদ্ধান্ত ঠিক ছিল কিনা, ভুল ফুটবলারকে লাল কার্ড দেওয়া হয়েছে কিনা যাচাই হবে ভিএআর প্রযুক্তির ব্যবহারে।

আইএফবিএর পক্ষ থেকে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এখন পর্যন্ত ৮০৪টি ম্যাচে ভিএআর ব্যবহার করা হয়েছে। যার মধ্যে সঠিক সিদ্ধান্ত এসেছে ৯৮.৯ শতাংশ ক্ষেত্রে। প্রত্যেক ম্যাচে গড়ে পাঁচ কিংবা তার কমবার ভিডিও রেফারি ব্যবহৃত হয়েছে এবং ৬৮.৮ শতাংশ ম্যাচে কোনো রিভিউ নেওয়া হয়নি। মূলত ২০১০ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ড মিডফিল্ডার ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ডের একটি গোল বাতিল করে দেওয়া হলে সেই গোল নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়তে হয় রেফারিকে। এরপর প্রথমবার ২০১৪ সালের বিশ্বকাপে পরীক্ষামূলকভাবে ভিএআর প্রযুক্তি নিয়ে আসা হয়। তবে এবারের বিশ্বকাপে সেই প্রযুক্তিকে আরও উন্নত করা হয়েছে।

সেবারের রেফারির ভুলের জন্য ক্ষমাও চেয়ে নেন তখনকার ফিফা সভাপতি সেপ ব্ল্যাটার। বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে এরকম ভুল ঠেকাতে তাই ২০১৪ বিশ্বকাপেই সংযোজন করা হয় গোললাইন প্রযুক্তি।ম্যাচ চলাকালেই ফুটবলারদের তথ্য পাবে দলগুলো  রাশিয়া বিশ্বকাপে প্রতিটি ম্যাচে মাঠে প্রত্যেক ফুটবলারের এবং বলের অবস্থান বিশ্লেষণ করা ও সে তথ্য দলগুলোকে দেওয়ার প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে রাশিয়া বিশ্বকাপে। বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া ৩২ দলকেই দুটি করে ট্যাব দেওয়া হবে। এর একটি

বিশেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/ইলিয়াছ

Categories: খেলাধূলা

Leave A Reply

Your email address will not be published.