মঙ্গলবার ২৯ কার্তিক, ১৪২৫ ১৩ নভেম্বর, ২০১৮ মঙ্গলবার

লংগদুর ঘটনায় এখনও আস্থা ফেরেনি পাহাড়ি-বাঙালি সম্পর্কে

বিশেরবাঁশী ডেস্ক: রাঙামাটির লংগদুতে পাহাড়িদের ওপর হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনার এক বছর পার হলেও এখন পর্যন্ত পাহাড়ি-বাঙালি সম্পর্কে পরিপূর্ণ আস্থা ফেরেনি। ওই ঘটনায় দীর্ঘ দিনের সম্পর্কে তৈরি হয়েছে দূরত্ব ও অবিশ্বাস। পাহাড়ি ও বাঙালি নেতারা মনে করছেন, দীর্ঘদিনের সম্পর্কে ভেঙে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল একটি গোষ্ঠী। কিন্তু সবাই মিলে কাজ করলে সেই সম্পর্ক ফিরিয়ে আনা সম্ভব। এজন্য সব অপশক্তির বিরুদ্ধে এক হয়ে কাজ করতে হবে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি লংগদু উপজেলার সাধারণ সম্পাদক মনি শংকর চাকমা মনে করেন, ‘লংগদুতে সাম্প্রদায়িকর হামলার কারণে দীর্ঘ দিনের সম্প্রতীর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমি মনে করি,এই ঘটনায় জড়িতদের বিচার এবং দ্রুততম সময়ের মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর বাড়িঘর নির্মাণ শেষ করা হলে কিছুটা আস্থা বাড়বে। সেই জন্য স্থানীয় পর্যায়ের সব নেতাকর্মীকে কাজ করতে হবে।’

১নং আটারকছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মঙ্গল কুমার চাকমা বলেন, ‘স্থানীয়ভাবে সবার মধ্যে যে আস্থা ছিল তা এখন নেই। গত বছরের নিজেদের মধ্যে অবিশ্বাস বেড়েছে অবশ্যই। তবে স্বাভাবিক হওয়ার চেষ্টা করছে ক্ষতিগ্রস্তরা। অগ্নিসংযোগের সঙ্গে জড়িদের সঠিক বিচার করা হয় তাহলে আস্থার জায়গা তৈরি হবে বলে আমি মনে করি।’

লংগদু উপজলো আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাবুল দাশ (বাবু) মনে করেন, ‘লংগদু উপজেলা সেভাবে সম্প্রতীর সঙ্গে উন্নয়নে এগিয়ে যাচ্ছিল। কিছু দুষ্কৃতিকারীর কারণে তা নষ্ট হতে পারে না। স্থানীয় পর্যায়ে পাহাড়ি-বাঙালি সবাই মিলে আস্থা ফিরিয়ে এনে নতুনভাবে লংগদুকে সাজাতে চাই। এর জন্য অবশ্যই সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।’

লংগদু উপজেলা চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন বলেন, ‘গত বছরের ঘটনায় বিদ্যমান সম্প্রতীর কিছুটা তো অবশ্যই নষ্ট হয়েছে। আমি মনে করি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের জন্য যে গৃহ নির্মাণ শুরু হয়েছে তা দ্রুত শেষ হলে আস্থার জায়গাটা বৃদ্ধি পাবে। একইসঙ্গে পাহাড়ি-বাঙালি নেতাকর্মীরা সবাই মিলে কাজ করলে আস্থার জায়গাটি আবারও তৈরি হবে।

বিশেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদাতা/ইলিয়াছ

 

Categories: সারাদেশ

Leave A Reply

Your email address will not be published.