মঙ্গলবার ৬ ভাদ্র, ১৪২৫ ২১ আগস্ট, ২০১৮ মঙ্গলবার

ধানের ফলন ভালো হলেও হাসি নেই কৃষকের

বিশেরবাঁশী ডেস্ক: উত্তরাঞ্চলের অন্যতম শস্য ভান্ডার হিসেবে পরিচিত নওগাঁর মহাদেবপুরে বোরো ধানের ফলনে কৃষকের মুখে হাসি ফুটলেও নায্যমূল্য নাথাকায় সে হাসি মিলিয়ে যাচ্ছে বাজারে এসে। তার উপর ধান কাটা মৌসুমে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও ঝড় শিলা বৃষ্টি মরার উপর খাঁরার ঘাঁ হয়ে দাঁড়িয়েছে কৃষকের। ফলন ভালো হলেও নায্য মূল্য না পাওয়ায় এবারও লোকসান গুনতে হবে বোরো চাষীদের। উপজেলার মাঠে মাঠে এখন বোরো ধান কাটা এবং মারাই কাজে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন চাষীরা। সূর্যোদয় থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বোরা ধান কাটা এবং মারাই কাজে ব্যস্ত চাষীরা ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ করছেন। ঝলঝলিয়া গ্রামের কৃষক মোঃ নজমুল হাসান ও মমতাজ হোসেন জানান এ বছর জিরা ও পারিজা ধানের ফলন তুলনামূলকভাবে বিগত বছরগুলোর চেয়ে ভাল হয়েছে। বিঘা প্রতি ২৬ থেকে ২৭ মন জিরা ধান উৎপাদন হচ্ছে। ধানের ফলনে ওইসব কৃষকের মুখে হাসি খুশি দেখা গেলেও তারা তাদের উৎপাদিত ধানের মূল্য নিয়ে কষ্টে রয়েছেন। বর্তমান বাজারে প্রতি মন জিরা ধান ৭৫০ থেকে ৭৮০ টাকা এবং পারিজা ধান ৬৫০ থেকে ৬৮০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এ দামে ধান বিক্রি করে লাভ হচ্ছে না কৃষকদের। হাতুড় গ্রামের কৃষক আমির হামজা বলেন, বোরো চাষের জমি ও বীজতলা তৈরী থেকে রোপণ এবং কাটা ও মারাই পর্যন্ত প্রতি বিঘা জমিতে যে পরিমাণ খরচ হয় তাতে ন্যুন্যতম বোরো ধান ৯৫০ থেকে ১০০০ টাকা প্রতি মন বিক্রি করতে পারলে কৃষকরা একটু হলেও লাভবান হবে। লক্ষ্মণপুর গ্রামের কৃষক আব্দুল কুদ্দুস ও আক্তার হোসেন জানান, বোরো ধানের উৎপাদনে তারা খুশি তবে স্থানীয় হাটবাজারে ধানের নায্য মূল্য না পাওয়ায় তারা চিন্তিত। ধানের নায্য মূল্য নিশ্চিত করার জন্য সরাসরি কৃষকের কাছে থেকে সরকারি ভাবে ধান ক্রয় ও বাজার তদারকি বাড়ানো প্রয়োজন বলেও তারা মনে করেন। চলতি বোরো মৌসুমে এ উপজেলায় ২৭ হাজার ৪০০ শত ৩০ হেক্টর জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও লক্ষ্যমাত্রার অধিক জমিতে এবার বোরো চাষ হয়েছে বলে উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ,কে,এম মফিদুল ইসলাম জানান ধান কাটা ও মারাই শ্রমিক সংকটের ফলে কৃষকদের মাঠের পাকা ধান ঘরে তুলতে বিলম্ব ঘটছে। চলতি মৌসুমে বোরো ধানের বাম্পার ফলন হওয়ার দাবি করে ওই কৃষি কর্মকর্তা জানান, আগামী ১০ থেকে ১২ দিনের মধ্যে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে উপজেলার প্রত্যেক মাঠের বোরো ধান কৃষকদের ঘরে তোলা সম্ভব হবে।

বিশেরবাঁশী ডেস্ক/সংবাদদাতা/ইলিয়াছ

Categories: অর্থনীতি

Leave A Reply

Your email address will not be published.