বৃহস্পতিবার ৫ আশ্বিন, ১৪২৫ ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বৃহস্পতিবার

নির্বাচন নিয়ে চক্রান্তের বিরুদ্ধে সতর্ক অবস্থানে ১৪ দল: নাসিম

  • অনলাইন ডেস্ক

 

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যে কোন ধরণের চক্রান্তের বিরুদ্ধে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোট। এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম।

রোববার আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে ১৪ দলের এক সভা শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান তিনি।

নাসিম বলেন, অহেতুক মাঠ গরম করার জন্য খালেদা জিয়া আবার মাঠে নেমেছেন। একের পর এক তিনি মিথ্যাচার করেই যাচ্ছেন। আমরা বলতে চাই, সংবিধান অনুযায়ীই আগামী নির্বাচন হবে। এখানে অন্য কিছু ঘটার সম্ভবনা নাই। আমরা মনে করি ১৪ দল সাংবিধানিক পথেই আছে, গণতন্ত্রের পথেই আছে।

তিনি বলেন, সরকার সময় মতই নির্বাচন করবে এবং জনগণের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়েই আবারো গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করা ব্যাপারে কোন ব্যাত্যয় ঘটবে না। আমরা বলতে চাই, কোন চক্রান্তের রাজনীতি করে এদেশে কোন লাভ হবে না। এ ব্যাপারে আমরা সতর্ক আছি এবং থাকবো ইনশাল্লাহ।

‘বিচার বিভাগ আওয়ামী লীগের কথায় চলে’ বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার এমন অভিযোগের জবাবে নাসিম বলেন, বিচার বিভাগকে তিনি অহেতুক দোষারপ করছেন। তিনি নিজেই যে কতবার মামলার তারিখ পরিবর্তন করেছেন আমি নিজেই জানি না।

তিনি বলেন, আমরা বিভিন্ন সময়ে রাজনৈতিক মামলার আসামী ছিলাম। সেসময় দেখেছি মামলার তারিখ নির্ধারণ করতো সরকারী দল। উনিই এগুলো করতেন সরকারে থাকা অবস্থায়। তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বিচার প্রক্রিয়া বিলম্বিত করছেন, তার মুখে এসব কথা মানায় না। তার আমলেই বিচার বিভাগ পদদলিত ছিল। বরং এই এদেশে সব থেকে স্বাধীন হচ্ছে বিচার বিভাগ।

‘ভোটের আগে ভ্যাট আইন দুই বছরের জন্য স্থগিতের পেছনে আওয়ামী লীগের ক্ষমতায় থেকে যাওয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছে’- বিএনপির পক্ষ থেকে এমন বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় চৌদ্দ দলের মূখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আবাগারি শুল্ক প্রত্যাহারের কারণে এবং ভ্যাট আইন স্থগিত করার কারণে জনগণ আমাদেরকে ভোট দিলে আমাদের কী করার আছে। যা জনগণের জন্য কল্যাণকর তাই করে এই সরকার। আগামী নির্বাচনে কে ক্ষমতায় আসবে সেটা বুঝবে জনগণ।

জঙ্গি সমস্যা সমাধানে সরকারের প্রশংসা করে ১৪ দলের এ নেতা বলেন, যে জঙ্গি উত্থান ঘটেছিল বিএনপি জামাত জোট সরকারের সময়ে, তারই ধারাবাহিকতায় হলি আর্টিজেনে যে ঘটনা ঘটেছিল, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় পদক্ষেপ, তার সাহসী সময়োপযোগী সিদ্ধান্তের কারণে আজকে সেই জঙ্গি দুর্বল হয়েছে কিন্তু এখনো নিঃশেষ হয়নি। ১৪ দল মনে করে এ জঙ্গি দমনের জন্য শুধু সরকার নয়, সামাজিক রাজনৈতিক শক্তিগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে। যে সব তরুণ বিভ্রান্ত পথে গিয়েছে তাদের ফিরিয়ে আনতে সরকারের পাশাপাশি আমাদেরও দায়িত্ব আছে।

তিনি আরো বলেন, এরা কোন ধর্মীয় অনুশাসন বিশ্বাস করে না। এরা ধর্মের নামে একের পর এক হত্যাকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছিল। তাদের হত্যাকাণ্ডের স্বীকার হয়েছিল আমাদের বিদেশী বন্ধুরা, সাহয্যকারী সংস্থার সদস্যরা, অনেক তরুণরা নির্মম হত্যাকাণ্ডের স্বীকার হয়েছিল। আমরা মনে করি এই ক্ষতচিহ্ন থেকে মুছতে হলে আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। বাংলাদেশের মাটি থেকে জঙ্গিবাদ নির্মূল করতে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে।

জাতীয় বাজেট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা জাতীয় বাজেট ঘোষণার পরপরই ১৪ দলের পক্ষ থেকে বৈঠক করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছিলাম যে জনগণের অনুভূতি অনুভব করে কয়েকটি কর প্রস্তাব বিবেচনা করার জন্য। আমরা খুশি হয়েছি সংসদ অধিবেশনে সরকার ও বিরোধী দলের অনেক সদস্যরা বাজেট নিয়ে আলোচনা করেছেন, ত্রুটি বিচ্যুতি তুলে ধরেছেন। আমাদের প্রধানমন্ত্রী সংসদে যে সমাপনী বক্তব্য দিয়েছেন যেখানে তিনি জনগণের অনুভূতি বুজতে পেরেছেন। বাজেট নিয়ে তার এই প্রঞ্জল বক্তব্যের কারণে দৃঢ় পদক্ষেপের আমরা তাকে ধন্যবাদ জানাই। বাজেট নিয়ে যারা অহেতুক সমালোচনা করেছিল, রাজনৈতিক ফয়দা লুটতে চেয়েছিল সেই বিএনপির মুখ বন্ধ হয়ে গেছে। এটাই হচ্ছে ১৪ দলীয় সরকারের রাজনৈতিক প্রজ্ঞার পরিচয়।

হলি আর্টিজান রেঁস্তোরায় হামলার বছর পূর্তি উপলক্ষে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, এই ঘটনা মানুষের মনে ব্যাপকভাবে নাড়া দিয়েছে। সরকার ও প্রশাসনের আন্তরিক প্রচেষ্ঠায় এদের যাত্রাপথ অনেকটা দূর্বল হয়েছে কিন্তু নি:শেষ হয়ে যায় নি। এদেরকে চিরতরে নির্মূল করতে হলে পরিবার ও সমাজের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তা না করে শুধু সরকার ও প্রশাসনের দিকে তাকিয়ে থাকলে চলবে না। এসময় সদ্য প্রয়াত গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা শহীদুল হক মামা, সঙ্গীত শিল্পী সুধীন দাশের প্রয়ানে শোক প্রকাশ করেন।

সংবাদ স্মমেলনে আন্তর্জাতিক জার্নালে বিশ্বের ১৮ নারীর তালিকায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাম আসায় তাঁকে চৌদ্দ দলের পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানানো হয়।

জাসদ একাংশের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতারের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম, বি এম মোজাম্মেল হকসহ চৌদ্দ দলের নেতারা।

বি,বা/ডেস্ক/ক্যানি

Categories: রাজনীতি

Leave A Reply

Your email address will not be published.