বুধবার ৪ আশ্বিন, ১৪২৫ ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বুধবার

সন্তানকে শিক্ষা দেবেন, এদেশ আমার; এ মাটি আমার:মেয়র আইভী (ভিডিও সহ)

বিষেরবাঁশী.কম ডেস্ক: আপনার সন্তানকে শিক্ষা দেবেন, এদেশ আমার, এ মাটি আমার৷ এই মাটিতেই বসবাস করবো৷ লড়াই করবো, যুদ্ধ করবো, এ মাটি ধরে রাখবো৷ মাটি কারো কাছে দেবো না! মাটি আমার মা, মাকে ভালোবেসে মরতেও প্রস্তুত আছি৷ মাকে কেন ত্যাগ করবো? যদি মাটি আমার মা’ই হয়ে থাকে মাটিকে ত্যাগ করা যাবে না৷ এখানে আমরা সবাই মিলে মিশে বাস করবো৷ এভাবেই বললেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভী ।

বৃহস্পতিবার (২২ মার্চ) সন্ধ্যায় নগরের আলাউদ্দিন খাঁন স্টেডিয়ামে আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ (ইসকন) এর আয়োজনে গৌরমন্ডল পরিক্রমা-২০১৮ এর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন৷

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী আরো, নারায়ণগঞ্জ হবে পজেটিভ নারায়ণগঞ্জ৷ যেই নারায়ণগঞ্জ দেখতে আসবে সকলেই৷ এই শীতলক্ষ্যার পানি আবার সুন্দর হবে৷ নারায়ণ নাম দিয়ে নারায়ণগঞ্জের নাম তাই এখানে সবসময় অসীম দয়া থাকবে৷ এই শহর হবে শান্তিময়৷ যেই শান্তির শহর দেখার জন্য সারা বিশ্বের থেকে লোক আসবে৷ এই রকম সাফারির আয়োজন হবে৷ যে যেই ধর্মেরই হোক না কেন, আমাদের মিলনমেলায় পরিনত হবে৷
এ সময় তিনি আরও বলেন, আমি আপনাদের মাঝে আছি ১৪ বছর যাবত৷ আমি চেষ্টা করেছি সকল ধর্মকে সম্মান দিয়ে আমার কাজটি করে যেতে৷ আমি প্রথমত মানব ধর্মে বিশ্বাসী৷ আমার বাবা আমাকে শিখিয়েছে, মানব ধর্মের উপরে কোন ধর্ম নাই৷ সুতরাং আমি সেই মানবধর্মে বিশ্বাসী৷ আমার কাছে হিন্দু, মুসলমান, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সবাই সমান৷ আমরা একই সৃষ্টিকর্তার তৈরি৷ যে যেখানে যেভাবে সৃষ্টি হয় সে তার সৃষ্টিকর্তাকে সেভাবে খুজে নেয়৷ আমি আপনাদের সেবা করে, মানুষের সেবা করে আল্লাহর সন্তুষ্টি পেতে চাই৷ আপনাদের ভালোবেসে আমি আমার আল্লাকে খুজে পেতে চাই৷

মেয়র বলেন, আজ থেকে ৮ বছর আগে ইসকন রাস্তার মধ্যে সাফারি প্রোগ্রাম দিয়ে শুরু করেছিলেন৷ আজকে ৮ বছর পর আবার এই মিলন মেলা৷ সেদিনও আপনাদের পাশে ছিলাম৷ আজও আপনাদের ডাকে এখানে এসেছি৷ নারায়ণগঞ্জ একটি সম্প্রীতির শহর৷ এখানে আমরা সকলে মিলেই বসবাস করছি৷

ডা. সেলিনা হায়াত আইভী আরো বলেন, টিভি ব্যক্তিত্ব ফারজানা রুপা যে কথা দিয়ে তার বক্তব্য শুরু করেছিলেন যে, নারায়ণগঞ্জে শুধু খারাপ খবর শুনে আসি কিন্তু আজকে আনন্দ উপভোগ করলাম৷ আমি আশা করবো, নারায়ণগঞ্জে এমন আনন্দ সবসময় যেন বিরাজমান থাকে৷ খুলনার এডিশনাল এসপি সোনালি সেন এখানে একটি আশঙ্কার কথা বলেছিলেন যে, তার কাছে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক জিজ্ঞেস করে, ‘আমরা তো হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক৷ আমরা কি বাংলাদেশে থাকতে পারবো? আমাদের কি ভারতে চলে যেতে হবে?’ আমি বলবো, এই দেশ আমাদের সকলের৷ ৭১ এ বঙ্গবন্ধু এদেশ স্বাধীন করেছে অসাম্প্রদায়িক চেতনা নিয়ে৷ হিন্দু, মসুলমান, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সকলে একত্রে মিলে দেশ স্বাধীন করেছে৷ এই মাটি আমাদের৷ আমরা কারো কথা দেশ ছেড়ে চলে যাবো এটা হতে পারে না৷ এরকম চিন্তা চেতনা বাদ দিতে হবে৷ আপনি হিন্দু বলে নিজেকে দূর্বল ভাববেন তা ভাবা চলবে না৷ আপনি মনে করবেন আপনি এই দেশের সন্তান, এখানে আপনার জন্ম৷ আমরা দেশ ত্যাগ কখনোই করবো না৷ ভারতে কোন মুসলমানকে যদি বলা হয়, ‘তুমি অন্য দেশে যাও৷’ তারা গর্জে ওঠে৷ তারা আমি ভারতীয় বলতে গর্ববোধ করে৷ তাহলে কেন ‘আমরা বাঙালি’ এই কথা বলে গর্ববোধ করতে পারবো না? কেন আমরা সামান্য কিছু হলেই মনে করবো, আমাদের এদেশ ছেড়ে চলে যেতে হবে৷ এ সমস্ত চিন্তা মাথা থেকে একদম মুছে ফেলবেন৷

এসময় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়ে মেয়র বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে অনেক বড় করে একটা অভিনন্দন জানাতে চাই৷ আমাদের মতো একটা গরীব দেশকে অজস্র পরিশ্রম করে উন্নত বিশ্বের কাছে নিয়ে যাচ্ছে ধীরে ধীরে৷ এর অংশীদার আমরা সকলে৷ বাংলাদেশের জনগনের জন্য, যাদের কষ্টের জন্য আজকে আমরা উন্নয়নশীল দেশ হয়েছি তাদের জন্যও অনেক অনেক অভিনন্দন৷

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকল ধর্মের মানুষকে সমান চোখে দেখেন৷ এখানে একজন মহারাজ বললেন, ‘ইসকনকে ঢাকায় জায়গা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী, বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করছেন৷’ আমরা নারায়ণগঞ্জেও কিন্তু তার ব্যতিক্রম নই৷ আমরাও যখন যা চেয়েছি যথা সম্ভব দেয়ার চেষ্টা করেছি৷ আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি দেওভোগ আখড়া মন্দিরের সকল সদস্যদের প্রতি৷ ২০১১ সালে তারা আমার পাশে যেভাবে সাহস করে দাড়িয়েছিলেন, তার জন্য আপনাদের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি৷ ১৪ বছর এখানে কাজ করেছি৷ আমার বাবাও আপনাদের সাথে করেছে, যেকোন ধর্মের সাথে যেকোন সময়ে৷ আমিও আমার জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত আপনাদের সকল ধর্মের সাথে মিলেমিশে কাজ করতে চাই৷

ইসকন বাংলাদেশের সাধারন সম্পাদক শ্রীপাদ চারুচন্দ্র দাস ব্রহ্মচারীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয় এর অতিরিক্ত সচিব শ্রী অরুণ মালাকার, খলনা মেট্রোপলিটন এর অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সোনালী সেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের হিন্দু ধর্মীয় কল্যান ট্রাষ্টের সম্মানিত ট্রাষ্টি শ্রী পরিতোষ কান্তি সাহা, নাসিক ১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শফিউদ্দীন আহম্মেদ, ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শ্রী অসিত বরণ বিশ্বাস, ১৩, ১৪,১৫ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত কাউন্সিলর শারমীন হাবিব বিন্নি, ৭১ টেলিভিশনের বিশেষ প্রতিনিধি ফারজানা রুপা, নারায়ণগঞ্জ শ্রী শ্রী হরেকৃষ্ণ নামহট্ট সংঘের প্রাক্তন সভাপতি শ্রী রঞ্জিত কুমার দাস, এফবিসিসিআই এর পরিচালক শ্রী প্রবীর কুমার সাহা, মেট্রো নিটিং এন্ড ডাইং মিলস লিমিটেড এর পরিচালক শ্রী অমল পোদ্দার, ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক শ্রী সমীর কর সহ দেশ বিদেশ থেকে আগত ইসকনের অন্যান্য ভক্তবৃন্দ৷

Posted by bisherbashi.com – HotNews on Thursday, March 22, 2018

বিষেরবাঁশী.কম / সংবাদদাতা/ হীরা

Categories: জাতীয়,নারায়ণগঞ্জের খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.